ঝাড়ফুঁকের নামে নাবালিকাকে ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ওঝা

260

বর্ধমান: ওঝা ঝাড়ফুঁক করে দিলেই শারীরিক অসুস্থতা সেরে যাবে নাবালিকার! এমন অন্ধবিশ্বাসে ভর করেই নাবালিকাকে সঙ্গে  নিয়ে ওঝার দ্বারস্থ হয়েছিল মা। কিন্তু অসুস্থতা থেকে মুক্তি পাওয়া তো দূরের কথা, উলটে যৌন লালসার শিকার হল নাবালিকা। এমনই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে পূর্ব বর্ধমানের মেমারি থানার উলোরা গ্রামে। পকসো আইনের ৪ ধারার মামলা রুজু করে পুলিশ রাতেই ওঝাকে গ্রেপ্তার করে। ধৃতকে শনিবার পুলিশ বর্ধমান আদালতে পেশ করে ৫ দিনের হেপাজতে নেওয়ার পাশাপাশি নির্যাতিতার গোপন জবানবন্দি নথিভুক্ত করানোর জন্যে আদালতে আবেদন জানান তদন্তকারী অফিসার।

পুলিশ ও পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, ১৩ বছর বয়সী নাবালিকার বেশ কিছুদিন যাবৎ শারীরিক অসুস্থতায় ভুগছিল। সেই কারণে কুসংস্কারচ্ছন্ন নাবালিকার মা শুক্রবার অসুস্থ মেয়েকে নিয়ে ওঝা সুদেব মালিকের কাছে যান। ওঝা মেয়েকে সুস্থ করে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে ঘরের ভিতরে নিয়ে গিয়ে দরজা বন্ধ করে দেয়। আধঘন্টা পেরিয়ে গেলে ঘরের দরজা ধাক্কা দেওয়া শুরু করেন মা। দরজা খুলে নাবালিকাকে কাঁদতে দেখেন তিনি। তারপরেই জানা যায়, নাবালিকাকে ধর্ষণ করেছে ওঝা। মেয়ের চিকিৎসা করিয়ে ওইদিনই ঘটনা সম্পর্কে মেমারি থানায় ওঝার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়। মেমারি হাসপাতালের চিকিৎসক ধৃত ওঝাকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজের ফরেন্সিক টেস্ট মেডিসিন বিভাগে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।

- Advertisement -