কর্ণজোড়া পুলিশ লাইনে করোনার থাবা, আক্রান্ত ১ কনস্টেবল

ফাইল ছবি

রায়গঞ্জ: উত্তর দিনাজপুরে ১ কনস্টেবল সহ ৩ জনের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসল। রবিবার সকালে মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল থেকে জেলা প্রশাসনের কাছে ওই রিপোর্ট পাঠানো হয়েছে।

এঁদের মধ্যে দুজন এই জেলার বাসিন্দা। আরেক আক্রান্ত পুলিশ কনস্টেবল মালদা জেলার মানিকচকের বাসিন্দা। প্রশাসনিক সূত্রে খবর, রায়গঞ্জ শহরের ৭ নম্বর ওয়ার্ডে বাসিন্দা ৬০ বছরের এক বৃদ্ধা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ওই বৃদ্ধা দিল্লিতে পরিচারিকার কাজ করতেন। চলতি মাসের ১৭ তারিখ মালদা হয়ে রায়গঞ্জে আসে। ১৮ তারিখে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ফিভার ক্লিনিকে শারীরিক পরীক্ষা করার পাশাপাশি লালারসে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এদিন পজিটিভ রিপোর্ট আসতেই তড়িঘড়ি স্বাস্থ্য দফতরের কর্তারা রায়গঞ্জের কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করে।

- Advertisement -

অন্যদিকে, রায়গঞ্জ শহর সংলগ্ন কর্ণজোড়া পুলিশ লাইনে কর্মরত এক পুলিশ কনস্টেবলের লালার নমুনায় পজিটিভ রিপোর্ট আসতেই স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্তারা পুলিশ লাইন থেকে উদ্ধার করে কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করে। রায়গঞ্জ থানার মারাইকুরা গ্রাম পঞ্চায়েতের অভোরের বাসিন্দা দিল্লিতে গাড়ির যন্ত্রাংশ তৈরির কাজ করতেন। চলতি মাসের ১৭ তারিখ তিনি বাড়িতে ফেরেন। ১৮ তারিখ রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে  তাঁর লালার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এদিন ওই যুবকেরও করোনা পজিটিভ পাওয়া গিয়েছে।

এই মুহূর্তে জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২৫০ জন। স্বাস্থ্য দপ্তরের এক কর্তা বলেন, এই তিনজন করোনা আক্রান্তকে রায়গঞ্জ কোভিড হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। তাঁরা প্রত্যেকে সুস্থ রয়েছেন। তিনি আরও বলেন, আইসিএমআর-এর গাইডলাইন মেনেই জেলায় করোনা মোকাবিলা ও চিকিৎসা চলছে। তবে বিজেপির অভিযোগ, জেলায় করোনা মোকাবিলা করতে প্রশাসন ও জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর ব্যর্থ।

করোনা আক্রান্তদের সুচিকিৎসা ও জেলাকে করোনা মুক্ত করতে উপযুক্ত পদক্ষেপ করার দাবিতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন বিজেপির জেলা সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ী। তাঁর অভিযোগ, জেলায় প্রায় ৪২ হাজার শ্রমিক এসে পৌঁছেছেন। ভিন রাজ্য শ্রমিকদের সামান্য কিছু লালার পরীক্ষা করা হলেও সব শ্রমিকদের লালা পরীক্ষা করছে না জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর। তাঁদের বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়ায় জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে।

তাঁর আরও অভিযোগ, রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজে আরটিপিসিআর যন্ত্র চালু হলেও কতজন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন, সেই তথ্য দিচ্ছে না মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ। এই প্রসঙ্গে মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষকে ফোন করা হলে তাঁরা কোনও মন্তব্য করতে চাননি।