ধূপগুড়ি শহরে করোনা আক্রান্ত আরও ১

334
ফাইল ছবি

ধূপগুড়ি: শুক্রবারের পর শনিবার ফের ধূপগুড়ি শহরে একজন করোনা আক্রান্তের হদিস মিলল।

আক্রান্ত ব্যক্তি পুর এলাকার ১ নম্বর ওয়ার্ডের কলেজপাড়া এলাকার বাসিন্দা। বৃহস্পতিবার ধূপগুড়ি হাসপাতালের সোয়াব সংগ্রহ কেন্দ্রে তাঁর লালার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। আজ সেই রিপোর্ট পজিটিভ আসে। ওইদিন নাথুয়ার এক ব্য়াক্তিরও সোয়াব সংগ্রহ করা হয়।

- Advertisement -

ধূপগুড়ির আক্রান্ত ব্যক্তি এনবিএসটিসির কর্মী। তিনি ১৫ দিন আগে কলকাতা থেকে ফিরে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন। ওই ব্যক্তি জানিয়েছেন, তাঁর কোনও শারীরিক সমস্যা বা করোনার উপসর্গ নেই। তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ রয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

তাঁর বাড়ি এবং সংলগ্ন এলাকাকে কনটেনমেন্ট জোন করা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে। তাঁর পরিবারের ১১ জন সদস্যের লালা পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এদিকে আজ সকাল থেকে শহরে একাধিক করোনা আক্রান্তের কথা উড়তে শুরু করলেও স্বাস্থ্য দপ্তর বা পুরসভা সূত্র এমন কোনও খবরের সত্যতা স্বীকার করা হয়নি।

প্রসঙ্গত, ধূপগুড়ি পুর এলাকায় শুক্রবারই প্রথম করোনার থাবা পড়ে। চার নম্বর ওয়ার্ডের কলেজ রোড এলাকার বাসিন্দা ওই ব্যক্তি সম্প্রতি ধূপগুড়িতে এক চিকিৎসকের চেম্বারে চিকিৎসা করাতে গিয়েছিলেন। সেখান থেকেই তাঁকে পরীক্ষা করার পরামর্শ দেওয়া হয়। করোনা সংক্রামিত ওই ব্যক্তি বর্তমানে শিলিগুড়ির হিমাঞ্চল বিহারের কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এই নিয়ে ধূপগুড়ি পুর এলাকায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ২। এদিকে আগামী ৫ থেকে ৮ অগাস্ট পর্যন্ত ধূপগুড়ি ব্যবসায়ী সমিতি ও ফোসিডের তরফে ধূপগুড়িতে ব্যবসা বন্ধ রাখার ঘোষণা করা হয়েছে। বিষয়টি সফল করতে সমস্ত ব্যবসায়ী ও জনসাধারণের কাছে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে আহ্বান জানানো হয়েছে।

ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক দেবাশিস দত্ত বলেন, ‘৫ ও ৮ অগাস্ট সরকারিভাবে লকডাউন রয়েছে। তার বাইরে ৬ ও ৭ অগাস্ট অর্থাৎ মোট চারদিন পুরোপুরি ব্যবসা বন্ধ রাখা হচ্ছে। সর্বস্তরের মানুষের কাছেই এবিষয়ে সহযোগিতার কথা বলা হয়েছে।’ উল্লেখ্য, ৬ ও ৭ অগাস্ট এই দুদিন ধূপগুড়িতে অফিস ও ব্যাংক খোলা থাকবে।