করোনা আক্রান্ত এক স্বাস্থ্যকর্মী, আতঙ্ক মেডিকেল কলেজে

236

রামপুরহাট: ফের স্বাস্থ্যকর্মীর শরীরে করোনার হানা। রামপুরহাট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের এক কম্পিউটার অপারেটরের করোনা পজিটিভ ধরা পড়ায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে হাসপাতালজুড়ে।

বুধবারই ওই স্বাস্থ্যকর্মীকে রামপুরহাটের করোনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাঁর পরিবারের ১৩ জন্য সদস্যকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে কোয়ারান্টিন সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এলাকাটি বাঁশ দিয়ে ঘিরে দেওয়া হয়েছে।

- Advertisement -

বীরভূম জেলায় এখনও পর্যন্ত দুজন স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত হলেন। এর আগে ময়ূরেশ্বর ১ নম্বর ব্লকের রাতমা স্বাস্থ্যকেন্দ্রের নার্স আক্রান্ত হয়েছিলেন। তিনি সুস্থ হয়ে গিয়েছেন। এবার রামপুরহাট মেডিকেল কলেজ  ও হাসপাতালের এমএসভিপি এবং ডেপুটি সুপারের ঘর লাগোয়া অ্যাকাউন্ট সেকশনে কম্পিউটার ডাটা অপারেটরের করোনা আক্রান্ত হওয়ায় আতঙ্ক ছড়াল।

ওই ব্যক্তির পজিটিভ রিপোর্ট আসার পরই বিভাগটি সিল করে দেওয়া হয়েছে। স্যানিটাইজ করার পর ফের অ্যাকাউন্ট সেকশন খোলা হবে বলে জানা গিয়েছে। ওই স্বাস্থ্যকর্মী আক্রান্ত হওয়ায় তাঁর রামপুরহাট পুরসভার ১১ নম্বর ওয়ার্ডের বাড়িটি সিল করে দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২ জুলাই প্রথম রামপুরহাট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল চত্বরে করোনা প্রথম থাবা বসায়। মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের নির্মাণের কাজে কর্মরত এক ঠিকাশ্রমিক করোনায় আক্রান্ত হন। এরপর থেকেই কাজ বন্ধ রেখে এলাকা সিল করে দেওয়া হয়। এরপর খোদ হাসপাতালের স্বাস্থ্যকর্মী আক্রান্ত হওয়ায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে।

কারণ ওই এলাকায় অফিস রয়েছে এমএসভিপি সুজয় মিস্ত্রি এবং ডেপুটি সুপার শর্মিলা মৌলিকের। এছাড়া হাসপাতালের গুরুত্বপূর্ণ বিভাগও রয়েছে সেখানে। ফলে বুধবার থেকেই ওই বিভাগের সমস্ত অফিস বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তবে একই বিল্ডিংয়ের নীচের তলায় থাকা এক্সরে বিভাগে, ওয়ার্ড মাষ্টারের ঘর খোলা রয়েছে। এদিকে বিল্ডিংয়ের নিরাপত্তারক্ষীদের প্রয়োজনীয় পোশাক দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ।

স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, বৃহপতিবার স্বাস্থ্য দপ্তর যে রিপোর্ট হাতে পেয়েছে তাতে জানা গিয়েছে, রামপুরহাট জেলা হাসপাতালে ৬ জন এবং বীরভূম জেলা হাসপাতালে ৪ জন নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। পুলিশ-প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য দপ্তর সেই সমস্ত এলাকা তৎপরতার সঙ্গে সিল করে দিয়েছে। ওই সমস্ত এলাকায় কঠোরভাবে লকডাউন পালন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।