হলদিবাড়িতে করোনা আক্রান্ত আরও ১

559
ফাইল ছবি

হলদিবাড়ি: ফের করোনায় আক্রান্তের হদিস হলদিবাড়ি শহরে।

শহরের ১১ নম্বর ওয়ার্ডের ইন্দিরা কলোনীর ৬৫ বছরের এক বৃদ্ধার দেহে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি মেলে।গত মঙ্গলবার ওই বৃদ্ধার লালার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এক সপ্তাহ পর আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সেই রিপোর্ট ব্লক স্বাস্থ্য দপ্তরে এসে পৌঁছায়। হলদিবাড়ির বিএমওএইচ ডাঃ তাপসকুমার দাস জানান, ওই বৃদ্ধার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে।

- Advertisement -

রিপোর্ট হাতে পেয়েই তৎপর হয়ে ওঠে ব্লক প্রশাসন। পুলিশ-প্রশাসন এলাকাটি কনটেনমেন্ট জোন ঘোষণা করে। খবর পেয়ে সেখানে পৌঁছান মেখলিগঞ্জের বিধায়ক অর্ঘ্য রায়প্রধান, হলদিবাড়ি বিডিও সঞ্জয় পন্ডিত, হলদিবাড়ি থানার আইসি দেবাশীষ বসু, পুরসভার স্যানিটারি ইন্সপেক্টর শরদিন্দু ঘোষ সহ পুর দপ্তরের কর্মীরা।

করোনায় আক্রান্ত ওই বৃদ্ধার সঙ্গে বিস্তারিত কথা বলেন ব্লক প্রশাসনের কর্তারা। প্রশাসন সূত্রে খবর, আক্রান্ত বৃদ্ধার কোনও ট্রাভেল হিস্ট্রি নেই। কী করে তিনি করোনায় আক্রান্ত হলেন, সেটি জানার চেষ্টা করা হচ্ছে। বিধবা ওই বৃদ্ধা মেয়ে, জামাই ও দুই নাতি ও নাতনি নিয়েই একই বাড়িতে থাকেন। তাঁর জামাই হলদিবাড়ি বাজারে সবজি বিক্রি করেন। কী করে তিনি করোনা আক্রান্ত হলেন, সেই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে হিমশিম খাচ্ছে প্রশাসনিক কর্তাব্যক্তিরা।

পুর স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে খবর, গত মঙ্গলবার সামান্য সর্দি নিয়ে ওই বৃদ্ধা হাসপাতালে যান। চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী সেই দিনই হলদিবাড়ি হাসপাতালে লালার নমুনা দেন। সেদিন ২৮ জনের লালার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। সোমবার ২২ জনের রিপোর্ট আসে। এদিন তাঁর রিপোর্টটি ব্লক স্বাস্থ্য দপ্তরে আসলে বিষয়টি নজরে আসে।

হলদিবাড়ির পুরসভার প্রশাসক সঞ্জয় পন্ডিত বলেন, “আক্রান্ত বৃদ্ধাকে জলপাইগুড়ি সারি হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। রাতেই ওই এলাকা বাঁশ দিয়ে ঘিরে ফেলে হবে। ওই এলাকার মোট আটটি বাড়িকে নিয়ে কনটেনমেন্ট জোন চিহ্নিত করা হয়েছে।”