স্বস্তিতে থাকা পঞ্চায়েতে আতঙ্ক বাড়িয়ে ১০ জন করোনা পজিটিভ

456

নয়ারহাট: একই পঞ্চায়েতে একসঙ্গে ১০ জন করোনা আক্রান্তের হদিস মিলল। মাথাভাঙ্গা-১ ব্লকের শিকারপুর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় রবিবার একসঙ্গে ১০ জন করোনা পজিটিভ রোগীর সন্ধান মিলেছে। ঘটনায় উদ্বেগ ছড়িয়েছে স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে।

আক্রান্তদের মধ্যে তৃণমূলের এক পঞ্চায়েত সদস্য রয়েছেন। এছাড়া এক পঞ্চায়েত সদস্যের স্বামীও রয়েছেন বলে স্থানীয় সূত্রের খবর। ইতিমধ্যেই আক্রান্তদের বাড়ি সংলগ্ন এলাকাকে কনটেনমেন্ট জোন ঘোষণা করে ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে বলে ব্লক স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে। আক্রান্তদের বেশিরভাগেরই কোনও উপসর্গ ছিল না। আপাতত তাঁদের হোম আইসোলেশনে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে খবর, পরবর্তীতে তাঁদের সেফ হাউজে নিয়ে যাওয়া হবে কী না সে ব্যাপারেও চিন্তাভাবনা চলছে।

- Advertisement -

কয়েকদিন আগেই স্বাস্থ্য দপ্তরের উদ্যোগে এবং সংশ্লিষ্ট ব্লক প্রশাসনের সহযোগিতায় শিকারপুর হাইস্কুলে শিবির করে ৪৪৪ জনের লালার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। রবিবার ব্লক স্বাস্থ্য দপ্তরের হাতে দুশোর বেশি নমুনার ফল এসে পৌঁছায়। তাতে দেখা যায়, মোট ১৭ জন করোনায় আক্রান্ত। তার মধ্যে শুধুমাত্র শিকারপুর পঞ্চায়েত এলাকারই ১০ ব্যক্তি করোনা পজিটিভ।

এছাড়া আক্রান্তদের দুজন পচাগড় গ্রাম পঞ্চায়েতের। বাকি চারজন মাথাভাঙ্গা পুরসভার। একজনের বাড়ি অন্যত্র। ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক বিমল অধিকারী বলেন, আক্রান্ত ব্যক্তিদের বাড়ি সংলগ্ন এলাকা কনটেনমেন্ট জোন ঘোষণা করে বাঁশের ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে। তাঁদের আপাতত গৃহ নিভৃতবাসে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। সেফ হাউজে নিয়ে যাওয়ার বিষয়টিও আমাদের মাথায় রয়েছে। এ ব্যাপারে বিডিও সম্বল ঝা-কে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন না তোলায় তাঁর কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

একসঙ্গে এতজন পজিটিভ রোগী চিহ্নিত হওয়ায় স্থানীয়দের অনেকেই উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। বাকি নমুনার রিপোর্ট আসলে এলাকায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন স্থানীয়দের একাংশ।