মনোনয়ন না মেলায় ক্ষোভ, কংগ্রেস ছাড়লেন ব্লক সভাপতি সহ ১০

186

মুর্শিদাবাদ: বিধানসভা নির্বাচনের মুখে মুর্শিদাবাদের সুতি বিধানসভা কেন্দ্রে বড়সড় ধাক্কা খেল কংগ্রেস। সুতি বিধানসভা কেন্দ্রে কংগ্রেস প্রার্থী নির্বাচনের ক্ষেত্রে সুতি-২ ব্লকের কংগ্রেসের দীর্ঘদিনের সভাপতি আলফাজুদ্দিন বিশ্বাসকে মনোনয়ন না দেওয়াতে ক্ষোভ নিয়ে দল ছাড়লেন। তাঁর সঙ্গে কংগ্রেস ত্যাগ করেছেন আরও নয়জন কংগ্রেসের অঞ্চল সভাপতি। কংগ্রেসের এই রক্তক্ষরণে সুতি কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী হুমায়ুন রেজা একুশের নির্বাচনে বিপদে পড়বেন বলেই মনে করছে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

সূত্রের খবর, মঙ্গলবার বিকেলে সুতিতে বিড়ি শ্রমিক সংগঠনের একটি বড় সমাবেশ হতে চলেছে। সেই সমাবেশ শেষে মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের খাদ্য ও সরবরাহ কর্মাধ্যক্ষ মইদুল ইসলামের নাম নির্দল প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা হবে। মইদুলের প্রার্থীপদকে সমর্থন জানিয়েছেন আলফাজুদ্দিন। তিনি বলেন, ‘সুতি বিধানসভা কেন্দ্রে প্রায় ২.৬৫ লক্ষ ভোটার রয়েছেন। তার মধ্যে ২.৩০ লক্ষ ভোটারই বিড়ি শ্রমিক। আমি নিজে বহুদিন ধরে বিড়ি শ্রমিক আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত। গত তিন বছরে বিড়ি শ্রমিকদের মজুরি বাড়েনি। উপরন্তু লকডাউনের কারণে প্রচুর শ্রমিকের মজুরি কমে গিয়েছে। তাঁরা এখন রোজ কাজ পান না। কিন্তু আমরা লক্ষ্য করলাম, কংগ্রেস এই সমস্ত শ্রমিকের কথা না ভেবে এমন একজনকে আবার মনোয়ন দিয়েছে যাকে সাধারণ মানুষ গত পাঁচ বছরে দেখেননি। আর যখন দেখেছে, তখনই তিনি বিড়ি মালিকদের পক্ষে কথা বলেছেন।’

- Advertisement -

আলফাজুদ্দিন বলেন, ‘আমি অবাক হয়ে লক্ষ্য করলাম রঘুনাথগঞ্জ, সাগরদিঘির মতো আসনে এমন কিছু লোক কংগ্রেসের থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন যাঁরা খুব অল্প দিন ব্লক কংগ্রেসের দায়িত্ব সামলেছেন। সুতি বিধানসভা কেন্দ্রে পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর যখন কংগ্রেসের পতাকা লাগানোর লোক পাওয়া যেত না তখনও আমি কাঁধে করে পতাকা নিয়ে গাছে, রাস্তার ধারে ইলেকট্রিক পোলে লাগিয়েছি। কংগ্রেস তার প্রতিদান দিল এমন একজনকে প্রার্থী করে যাঁকে গত পাঁচ বছরে কোনও আন্দোলনে দেখা যায়নি।’

আলফাজুদ্দিনের দাবি, তাঁর সঙ্গে ন’জন কংগ্রেসের গ্রাম পঞ্চায়েত সভাপতিও তাঁদের পদত্যাগপত্র অধীর চৌধুরীকে পাঠিয়ে দিয়েছেন। তাঁর দাবি, এর ফলে সুতি বিধানসভা কেন্দ্রে কংগ্রেস প্রার্থীর পরাজয় অবশ্যম্ভাবী। ওই আসনে তৃণমূল প্রার্থী ইমানি বিশ্বাসের লড়াই হবে নির্দল প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে যাওয়া মইদুল ইসলামের সঙ্গে।

মইদুল শিবির থেকে দাবি করা হয়েছে, সুতি বিধানসভা এলাকার ১৩টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকাতে এখন তাঁদের সমর্থক যেকোনও রাজনৈতিক দলের থেকে বেশি। তার প্রমাণ মঙ্গলবার বিড়ি শ্রমিকদের সভাতে তাঁরা দেবেন। সূত্রের খবর, প্রায় ১০-১৫ হাজার বিড়ি শ্রমিক আগামীকালের মিছিলে অংশ নেবেন এবং মিছিল শেষে আলফাজুদ্দিন, মইদুল ইসলামের নাম নির্দল প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করবেন।

মইদুল শিবিরের বক্তব্য, তৃণমূল প্রার্থী ইমানি বিশ্বাসকে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ নিমতিতা বিস্ফোরণ কাণ্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করবার পর এলাকাতে তাঁর গ্রহণযোগ্যতা তলানিতে এসে ঠেকেছে। তৃণমূলের একটি অংশ প্রার্থী বদলেরও দাবি তুলেছে। আলফাজুদ্দিন বলেন, ‘এলাকার বিশিষ্ট সমাজসেবী হিসেবে মইদুলের সুতিতে ভালো পরিচিতি রয়েছে। এই এলাকার সাধারণ বিড়ি শ্রমিকরা কংগ্রেসের হুমায়ুন রেজা এবং তৃণমূলের ইমানি বিশ্বাস কাউকেই পছন্দ করছেন না। কারণ দুজনেই বিড়ি মালিকদের হয়ে কথা বলেন। তাই আমাদের সকলের সমর্থন নিয়ে মইদুল ইসলাম নির্দল প্রতীকে সুতি বিধানসভা কেন্দ্র থেকে প্রার্থী হচ্ছেন।’