প্রার্থী ঘোষণার ১১ দিন পর দলীয় কার্যালয়ে গেলেন সৌমেন রায়

93

কালিয়াগঞ্জ: বহিরাগত প্রার্থী নিয়ে দলের অন্দরেই সৃষ্টি হয়েছিল ক্ষোভ। এক সময় প্রার্থী পরিবর্তনের জন্য পথ অবরোধ, সাংগঠনিক পদ থেকে পদত্যাগ, অনশন পর্যন্ত করেছিলেন স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব। মঙ্গলবার সেই বিক্ষুব্ধ দলীয় কার্যকর্তাদের পাশে নিয়ে বিধানসভা নির্বাচনে কালিয়াগঞ্জের দলীয় কার্যালয়ে গেলেন ফালাকাটা নিবাসী সৌমেন রায়। এদিন সকালে বিরিঘইয়ে ভোট প্রচার শেষ করে প্রার্থী ঘোষণার ১১ দিন পর কালিয়াগঞ্জের দলীয় কার্যালয়ে পা রাখলেন সৌমেন রায়।

উল্লেখ্য, প্রার্থী ঘোষণার পর থেকে সৌমেন রায়ের বৈধ স্ত্রী দাবি করে তাঁর স্বামীর বিরুদ্ধে সোশাল মিডিয়ায় একের পর এক ভিডিও ছাড়েন প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষিকা শর্বাণী সিনহা রায়। তাঁর অভিযোগ, বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িত, চাকরির নামে টাকা তোলা এই সৌমেন রায়কে যেন একটি ভোটও কালিয়াগঞ্জবাসী না দেন। স্বভাবতই, এক অচেনা, অজানা প্রার্থীর এই বিষয় সামনে আসতেই খোদ কালিয়াগঞ্জের বিজেপি সংগঠনের মধ্যে শুরু হয় বিক্ষোভ। জেলা থেকে শুরু করে রাজ্য, কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে লিখিতভাবে জানিয়েও প্রার্থী পরিবর্তনে কোনও আশার আলো দেখতে পায়নি কালিয়াগঞ্জের গৈরিক পরিবার।

- Advertisement -

এদিকে ক্ষোভের আগুন দাবানলে পরিণত হওয়ার ইঙ্গিত পেতেই বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা অরবিন্দ মেনন রায়গঞ্জে এসে কালিয়াগঞ্জের নেতৃত্বদের সঙ্গে বৈঠক করে প্রার্থীকে জিতিয়ে নিয়ে আসার নির্দেশ দেন। সেই মোতাবেক বিগত দিনে রায়গঞ্জ ব্লকের বীরঘই এবং বরুয়া অঞ্চলে ভোট প্রচারে প্রার্থীকে দেখা গেলেও কালিয়াগঞ্জের স্থানীয় দলীয় কার্যকর্তাদের সঙ্গে এখনও অবধি প্রচার অভিযানে দেখা যায় নি প্রার্থীকে। তবে এক সময়ের প্রার্থী পরিবর্তনে বিরোধিতায় সোচ্চার হয়ে ওঠা বিজেপির কার্যকর্তাদের মত পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে সেই প্রার্থীর হয়ে প্রচারে নামতে দেখে স্থানীয় জনগণ বিষয়টিকে কিভাবে নেবেন তা আগামী ২ মে পরিষ্কার হয়ে যাবে।