জলপাইগুড়ি, মে : ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প খাতে জলপাইগুড়ি জেলায় ১৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগ হল। ১৫টি নতুন শিল্পকারখানা হচ্ছে। বিস্কুট কারখানা, প্লাস্টিকের সামগ্রী তৈরির কারখানা, ছোটো শিল্পের উপকরণ তৈরির কারখানার পাশাপাশি বহুমুখী হিমঘর স্থাপনের জন্যও রাজ্য সরকারের কাছ থেকে জমি নেওয়া হয়েছে।

ইতিমধ্যে উদ্যোগপতিরা কাজও শুরু করে দিয়েছেন। জেলার আমন ধানের পাশাপাশি বোরো ধানের উৎপাদন বৃদ্ধির কথা মাথায় রেখে রাইসমিলও হচ্ছে। খাদ্য ও সরবরাহ দপ্তরের খাদ্যসামগ্রী মজুত করার জন্য বড়োমাপের গোডাউন নির্মাণের জন্য আর্থিক বরাদ্দ করেছে রাজ্য সরকার। এই প্রকল্পগুলি বাস্তবায়িত হচ্ছে আমবাড়ি-ফালাকাটা ইন্ডাস্ট্রিয়াল সেন্টারে। জলপাইগুড়ি জেলা শিল্প দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, শিল্পায়নের গতিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য উদ্যোগপতিদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে। চলতি আর্থিক বছরে আরও বেশ কয়েকজন এই জেলায় শিল্পায়নের জন্য আসছেন। ইতিমধ্যেই আগ্রহীরা নিজেদের প্রকল্পের বিষয়ে জেলা শিল্প দপ্তরের আধিকারিকদের সঙ্গে প্রাথমিকপর্বের আলোচনা করেছেন।

জলপাইগুড়ি জেলা শিল্পকেন্দ্রের অধীন আমবাড়ি-ফালাকাটা শিল্প বিকাশকেন্দ্র। এই কেন্দ্রে শিল্পায়নের জন্য ১১৮ একর জমি অধিগৃহীত হয়েছে। ইতিমধ্যেই ১৫টি শিল্প প্রকল্পের জন্য ৩০ একর জমি বরাদ্দ হয়েছে। শিল্প দপ্তরের এক পদস্থ কর্তা বলেন, আমবাড়ি-ফালাকাটা শিল্প বিকাশকেন্দ্রে উদ্যোগপতিদের সুবিধার জন্য বিদ্যুৎ পরিসেবা ভালো করার পাশাপাশি রাস্তাঘাটও সংস্কার করা হয়েছে। পরিস্রুত পানীয় জল সরবরাহের ব্যবস্থা করেছে জেলা শিল্প দপ্তর।

জলপাইগুড়ি জেলায় সমীক্ষা করে দেখা গিয়েছে, স্থানীয বিস্কুটের ভালো চাহিদা রয়েছে। এই চাহিদার কথা মাথায় রেখে আমবাড়ি-ফালাকাটায় সাড়ে তিন একর জমি বরাদ্দ করা হয়েছে বিস্কুট কারখানার জন্য। রাজ্য সরকার উদ্যোগপতিদের কাছে প্রতি কাঠা জমির দাম ১ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা নিচ্ছে।

জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার এবং দার্জিলিং জেলার র‌্যাশন ব্যবস্থার পরিকাঠামোর জন্য ১১ একর জমিতে খাদ্য দপ্তর ৩২ কোটি টাকায় গোডাউন নির্মাণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। জেলা খাদ্য নিয়ামক কল্যাণ ঘোষ জানিয়েছেন, ইতিমধ্যেই গোডাউন নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। এই গোডাউনে ২৫ হাজার মেট্রিক টন খাদ্যসামগ্রী মজুত রাখা যাবে। এখানে মূলত চালই মজুত করা হবে। জলপাইগুড়ি ও কোচবিহার জেলায় সবজি সংরক্ষণের পরিকাঠামোগত দুর্বলতা কৃষকদের প্রতি বছর বিপাকে ফেলে। এই বিষয়টি মাথায় রেখে আমবাড়ি-ফালাকাটায় দুই একর জমির উপর বহুমুখী হিমঘর হচ্ছে।

জলপাইগুড়ি জেলা শিল্প দপ্তরের এক কর্তা জানান, ১৫০ কোটি টাকা শিল্পায়নের খাতে বিনিযোগ হয়েছে। এই বিনিয়োগের জেরে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রায় এক হাজার কর্মসংস্থান হবে। ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকজন উদ্যোগপতি কারখানা গড়ার জন্য জমির আবেদন করেছেন। আগ্রহী উদ্যোগপতিদের জমি পেতে কোনো সমস্যা হবে না।