ভোটের মুখে ২১টি বোমা উদ্ধার, আতঙ্ক এলাকায়

96

দুর্গাপুর: বুধবার পশ্চিম বর্ধমান জেলার দুর্গাপুরের কাঁকসা থানার জাঠগড়িয়া এলাকা থেকে জ্যারিকেন ভর্তি ২১টি তাজা বোমা উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনাকে ঘিরে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে। সেইসঙ্গে নির্বাচনের ঠিক আগে এলাকায় বোমা উদ্ধার হওয়ায় রাজনৈতিক চাপানউতোরও শুরু হয়েছে। তৃণমূল কংগ্রেসের অভিযোগ, বিজেপি সন্ত্রাসের আবহ তৈরি করতেই বোমা নিয়ে এসেছে। নির্বাচনের আগে বিজেপির বালি ও কয়লা মাফিয়ারা এলাকায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। অন্যদিকে, বিজেপির পালটা অভিযোগ, তৃণমূল কংগ্রেসের আশ্রিত দুষ্কৃতীরা নির্বাচনের আগে এলাকায় আতঙ্ক তৈরি করতে বোমা মজুত করছে। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, এদিন সকালে পুলিশ বাহিনী ও কমব্যাট ফোর্স এলাকায় টহল দিচ্ছিল। সেই সময় পুলিশ দেখে, জাঠগড়িয়া থেকে শিবপুর যাওয়ার রাস্তায় একটি কালর্ভাটের নিচে একটি জ্যারিকেন পড়ে আছে। সন্দেহজনক জ্যারিকেন খুলতেই তাজা সুতলি বোমা উদ্ধার হয়। পুলিশ জল দিয়ে বোমাগুলি নিষ্ক্রিয় করে।

- Advertisement -

কাঁকসা ব্লকের তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি দেবদাস বক্সি বলেন, ‘এই এলাকায় কয়লা ও বালি মাফিয়ারা বিজেপির সঙ্গে যুক্ত রয়েছে। তারা নির্বাচনের আগে এলাকায় আতঙ্ক ছড়াতেই এভাবে বোমা রেখেছে। বিজেপির বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনারের কাছে আমরা অভিযোগ জানাব।’ অন্যদিকে, বিজেপির সহ সভাপতি রমন শর্মার পালটা বলেন, ‘সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ। বোমাগুলি তৃণমূল কংগ্রেস আশ্রিত দুষ্কৃতীরা মজুত করেছে। তারা এলাকায় সন্ত্রাস ছড়াতে চাইছে।’

এদিকে, আসানসোল-দুর্গাপুর পুলিশের ডিসিপি (পূর্ব) অভিষেক গুপ্তা বলেন, ‘বিভিন্ন এলাকায় নাকা চেকিং ও টহলদারি চলছে। গত ৭২ ঘণ্টায় ৭৪টি বোমা ও ৯ আগ্নেয়াস্ত্র সহ ১১টি কার্তুজ উদ্ধার হয়েছে। মোট ৮টি মামলায় ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এদিন আসানসোল-দুর্গাপুর পুলিশের এসিপি (কাঁকসা) অক্ষত গর্গের নেতৃত্বে জাঠগড়িয়া এলাকায় রুটমার্চ চলছিল। সেই সময় ওই এলাকায় একটি জ্যারিকেন থেকে ২১ সুতলি বোমা উদ্ধার করা হয়। কে বা কারা কী উদ্দেশ্যে বোমাগুলি জ্যারিকেনে ভরে লুকিয়ে রেখেছিল, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ঘটনার পর এলাকায় নজরদারি আরও বাড়ানো হয়েছে।’