জলপাইগুড়ির গ্রামীণ এলাকায় ২১০ কিমি নতুন রাস্তা

351

জ্যোতি সরকার, জলপাইগুড়ি : জলপাইগুড়ি জেলায় গ্রামীণ সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতিতে ২১০ কিলোমিটার রাস্তা তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি, শৌচাগার ও নর্দমা তৈরি, বর্জ্য থেকে সার তৈরিতে জলপাইগুড়ি জেলা পরিষদ বিশেষভাবে উদ্যোগী হয়েছে। এজন্য পঞ্চদশ অর্থ কমিশন থেকে জলপাইগুড়ি জেলা পরিষদের জন্য ১৯ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। সূত্রের খবর, বরাদ্দের টাকায় দ্রুত সমস্ত কাজ করা হবে। জলপাইগুড়ি জেলা পরিষদের সভাধিপতি উত্তরা বর্মন বলেন, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি ছাড়া গ্রামাঞ্চলের সার্বিক উন্নয়ন সম্ভব নয়। বিশেষত কৃষিপণ্যের বিপণনের স্বার্থে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি প্রয়োজন। বিষয়টির গুরুত্ব খতিয়ে দেখে জেলা পরিষদের ইঞ্জিনিয়ারিং সেল সমীক্ষা চালায়। জেলার ৮০টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার কোন কোন অঞ্চলে রাস্তা তৈরি করা হবে সেই তালিকা তৈরি করা হয়েছে। পঞ্চদশ অর্থ কমিশনের প্রাপ্ত টাকায় রাস্তা তৈরির কাজকে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। আগামী বর্ষার আগেই যাতে ২১০ কিলোমিটার রাস্তা তৈরি করা সম্ভব হয় আমরা সেই লক্ষ্যেই এগোচ্ছি।

জেলা পরিষদ সূত্রে খবর, তাঁদের নিজ নিজ এলাকায় সমস্ত রাস্তাঘাটের কী হাল সে বিষয়ে পরিষদের সমস্ত সদস্য ইতিমধ্যেই উপরমহলকে রিপোর্ট দিয়েছেন। জলপাইগুড়ির সাতটি ব্লকে যে ২১০ কিলোমিটার রাস্তা তৈরি করা হবে, ইতিমধ্যেই সেগুলির কয়েকটির জন্য পরিষদের ইঞ্জিনিয়ারিং সেল টেন্ডার করেছে। আগামী বর্ষার মরশুমের আগে যাতে অধিকাংশ রাস্তার কাজ শেষ করা যায় সেদিকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি, ইতিমধ্যেই যে সমস্ত রাস্তা ভেঙেচুরে গিয়েছে সেগুলি সংস্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। গ্রামাঞ্চলের কর্মব্যস্ত এলাকাগুলিতে শৌচাগার তৈরি করা হবে বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। জল জমে থাকার কারণে বহু এলাকার মানুষকে দুর্ভোগের মুখে পড়তে হয়। জল জমে থাকার সমস্যা মেটাতে জেলা পরিষদ বেশ কয়েকটি নর্দমা তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বর্জ্য জমে থাকার কারণে কোনও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের সৃষ্টি যাতে না হয় সেজন্য বর্জ্য সংগ্রহের বিষয়ে বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সংগৃহীত বর্জ্য পদার্থ দিয়ে সার তৈরি করা হবে। সার সুলভমূল্যে কৃষকদের মাঝে বণ্টনেরও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

- Advertisement -

তবে জেলা পরিষদের এই তত্পরতা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে সমালোচনা শুরু হয়েছে। বিজেপির জলপাইগুড়ি জেলা সভাপতি বাপি গোস্বামী বলেন, আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের আগে মানুষের দৃষ্টি ঘোরাতেই তণমূল কংগ্রেস পরিচালিত জলপাইগুড়ি জেলা পরিষদ এমন কৌশল নিয়েছে। ভোটের আগে নতুন রাস্তা তৈরির কর্মসূচি ঘোষণা করা হচ্ছে। অথচ বহু আগেই এই রাস্তা তৈরির প্রয়োজন ছিল। এছাড়া, ঘোষিত কর্মসূচি অনুসারে রাস্তা আদৌ তৈরি করা হবে কি না সে বিষয়ে আমাদের যথেষ্টই সন্দেহ রয়েছে। তণমূলের জলপাইগুড়ি জেলার মুখপাত্র তথা জেলা পরিষদের সহকারী সভাধিপতি দুলাল দেবনাথ বলেন, বিরোধীরা উন্নয়নের বিরোধিতা করে রাজনীতির চেষ্টা করছেন। মা-মাটি-মানুষের সরকার মানুষের স্বার্থে কাজ করে চলেছে। ২১০ কিলোমিটার নতুন রাস্তা তৈরির উদ্যোগ এরই অন্যতম অঙ্গ।