২৩টি রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা বিলগ্নিকরণের পথে কেন্দ্র

নিউজ ব্যুরো : ফের ২৩টি রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাকে বিলগ্নিকরণের পথে হাঁটতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার। সম্প্রতি তথ্য জানার অধিকার আইনে চণ্ডীগড়ের এক ব্যক্তির প্রশ্নের উত্তরে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রক জানিয়েছে, দুর্গাপুর স্টিল প্ল্যান্ট, বেঙ্গল কেমিক্যাল অ্যান্ড ফার্মাসিউটিক্যালস, আইটিডিসি, শিপিং কর্পোরেশন অফ ইন্ডিয়া, পবন হংস লিমিটেড, ভারত পেট্রোলিয়াম সহ ২৩টি রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাকে বিলগ্নিকরণ করা হবে। ইতিমধ্যেই এই সিদ্ধান্ত কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভা সিলমোহর দিয়েছে। এর আগে কয়েকটি সংস্থাকে বিলগ্নিকরণের ঘোষণা করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার। তা নিয়ে চরম বিতর্ক তৈরি হয়েছিল। এমনকি, রেলের একটি অংশকেও বিলগ্নিকরণের রাস্তায় হেঁটে সমালোচনার মুখে পড়েছে নরেন্দ্র মোদি সরকার। ফের কেন্দ্রীয় সরকারের এই সিদ্ধান্তের সমালোচনায় সরব হয়েছে বিরোধীরা।

অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন গত ২৭ জুলাই ঘোষণা করেছিলেন, কেন্দ্রীয় সরকার ২৩টি রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাকে বিলগ্নিকরণের প্রস্তুতি নিচ্ছে। যে কোম্পানিগুলিকে বিলগ্নিকরণ করা হচ্ছে তার কত শতাংশ শেয়ার বিক্রি করা হবে, এই প্রশ্নের উত্তরে জানানো হয়েছে, কোনও সংস্থার বিলগ্নিকরণের সময় কোম্পানির বাজারের অবস্থা খতিয়ে দেখা হয়। আরেকটি প্রশ্নের উত্তরে অর্থমন্ত্রকের জবাবে বলা হয়েছে, এখনই কোনও রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংককে বেসরকারিকরণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, ২০২০-২০২১ বাজেটে ২.১০ লক্ষ কোটি টাকা বিলগ্নিকরণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তার মধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা বিক্রি করে ইতিমধ্যেই ১.২০ লক্ষ কোটি টাকা বিলগ্নিকরণ সম্ভব হয়েছে। অর্থমন্ত্রী সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন, বর্তমান আর্থিক মন্দা কাটিয়ে উঠতে এবং সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধিতে বিলগ্নিকরণ নীতি সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। তার জন্য আত্মনির্ভর ভারত-এর স্লোগান ব্যাহত হবে না।

- Advertisement -

ইতিমধ্যেই রেলের একটি অংশকে বিলগ্নিকরণের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়েছে। রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল জানিয়েছেন, ১০৯টি রুটে বেসরকারি ট্রেন চালানো হবে। কয়েকটি বিমানবন্দরও বেসরকারিকরণ করা হয়েছে। এরপর এই ২৩টি সংস্থার বিলগ্নিকরণের সিদ্ধান্তের সমালোচনায় বিরোধীরা সরব হয়েছে। ইতিমধ্যেই দুর্গাপুরে এই নিয়ে কর্মীদের মধ্যে আতঙ্কও তৈরি হয়েছে। সুযোগ বুঝে আসরে নেমেছে সিটু এবং তৃণমূল। এই ইশ্যুতে স্থানীয় বিজেপি সাংসদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। দুর্গাপুর স্টিল প্ল্যান্ট বেসরকারিকরণের সিদ্ধান্তে বিব্রত দুর্গাপুরের বিজেপি এমপি এস এস আলুওয়ালিয়া। এদিনই তিনি অর্থমন্ত্রকের যুগ্মসচিবকে চিঠি দিয়ে প্রকৃত ও বিশদ তথ্য জানতে চেয়েছেন।

অর্থমন্ত্রী ইতিমধ্যেই জানিয়েছেন, রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাগুলির বিলগ্নিকরণের জন্য সঠিক সময় বাছা হচ্ছে। তিনি খুব শীঘ্রই এনবিএফসি এবং এসএফবির সঙ্গে বৈঠকে বসবেন। এদিকে, ভারত পেট্রোলিয়ামের বেসরকারিকরণের উদ্যোগের প্রতিবাদে কর্মীরা চলতি সপ্তাহে কর্মবিরতির ডাক দিয়েছিলেন। এর বিরুদ্ধে সংস্থা আদালতে যায়। রবিবার ছুটি থাকা সত্ত্বেও প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চে জরুরি শুনানি চলে। মঙ্গলবার ফের এই মামলার শুনানি হবে বলে আদালত সূত্রে জানা গিয়েছে।