তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষে উত্তপ্ত গলসি, জখম ৩

131

বর্ধমান: তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে জখম হলেন এক মহিলা সহ তিনজন। বুধবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব বর্ধমানের গলসির করকডাল এলাকায়। লাঠি ও রড দিয়ে পিটিয়ে শেখ বদরুদ্দোজা নামে এক তৃণমূল কর্মীর হাত পা ভেঙে দেওয়ার পাশাপাশি বাড়িও ভাঙচুর করা হয় বলে অভিযোগ। খবর পেয়ে গলসি থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। শেখ বদরুদ্দোজাকে উদ্ধার করে রাতেই বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। উত্তেজনা থাকায় বৃহস্পতিবার এলাকায় টহল দেয় পুলিশ।

জখম তৃণমূল সমর্থক শেখ বদরুদ্দোজা জানান, বুধবার সন্ধ্যায় গলসির বোলপুর মোড়ের একটি চায়ের দোকানে তিনি এবং আরও তিন-চারজন বসে চা খাচ্ছিলেন। ওই সময় পারাজ অঞ্চলের তৃণমূল কর্মী শেখ বাপি সহ বেশ কয়েকজন তাঁদের ওপর হামলা চালান। তাঁকে মাটিতে ফেলে লাঠি, রড দিয়ে পেটানো হয়। এর ফলে তাঁর দুটি পা ও একটি হাত ভেঙে গিয়েছে। বদরুদ্দোজার অভিযোগ, এলাকা দখলে রাখতেই শেখ বাপি ও তাঁর দলবল এই হামলা চালিয়েছে।

- Advertisement -

যদিও শেখ বাপি দাবি করেছেন, গ্রামে উত্তেজনা সৃষ্টি করার জন্য বদরুদ্দোজাই মঙ্গলবার বাইরে থেকে লোকজন নিয়ে এসেছেন। বদরুদ্দোজার লোকজন চায়ের দোকানে বসে শেখ বাপির লোকজনকে উদ্দেশ্য করে কটু কথা বলছিলেন। তা নিয়ে প্রথমে দুই পক্ষের বচসা হয়। পরে মারপিট শুরু হয়। শেখ বাপির আরও অভিযোগ, অন্য গোষ্ঠীর লোকজন কাদের মোল্লার বাড়িতে ভাঙচুর চালিয়েছেন। এছাড়া হাসিনা বেগম নামে এক মহিলাকে ব্যাপক মারধর করা হয়েছে।

বিজেপি নেতা শ্যামল রায়ের অভিযোগ, অবৈধ বালিখাদানের দখলদারি নিয়ে গলসিতে তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল লেগেই  রয়েছে। তবে তৃণমূলের জেলা নেতৃত্ব এই ঘটনাকে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব হিসেবে মানতে নারাজ। তৃণমূলে কোনও গোষ্ঠী কোন্দল নেই বলে দাবি করেছেন পূর্ব বর্ধমান জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র প্রসেনজিৎ দাস। তিনি জানান, কী ঘটনা ঘটেছে, তা খোঁজ নিয়ে দেখছেন।