সমাজের মূলস্রোতে ফেরার লড়াইয়ে ৩৫ যুবতি

326

কলকাতা, ২৭ জানুয়ারিঃ কাজের প্রলোভন দেখিয়ে ভিনরাজ্যে পাচার হওয়া ৩৫ জন যুবতিকে ফিরিয়ে আনা হয়েছে এরাজ্যে। উত্তর ২৪ পরগনার বনগাঁ, বারাসাত, বসিরহাট মহকুমা সহ সুন্দরবন লাগোয়া এলাকা থেকে তাঁদের কাজের প্রলোভন দেখিয়ে কিংবা জোর করে ভিনরাজ্যে পাচার করা হয়েছিল। এই মর্মান্তিক জীবন কাহিনি সকলের সামনে তুলে ধরলেন তাঁরা। অন্য মেয়েদের সঙ্গে যাতে এমনটা না হয়। তাই তাঁরা সোমবার সীমান্ত এলাকা থেকে শুরু করে সুন্দরবন লাগোয়া ব্লক সন্দেশখালি, হিঙ্গলগঞ্জ, হাসনাবাদ, বসিরহাট, বাদুড়িয়া, সরুপনগরে প্রচার লিফলেট ছাপিয়ে শিশু-নারী পাচার বিরোধিতার সংকল্প নিয়েছেন। তাঁদের জীবন সংগ্রাম কতটা কঠিন। তাঁরা কতটা লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে ফিরে এসেছেন। তা তুলে ধরা হয়েছে। একইসঙ্গে বাল্যবিবাহ রোধেও বড়ো ভূমিকা নিয়েছেন। বুঝিয়ে দিচ্ছেন এর ফলে কী কী হতে পারে। এই উদ্যোগ নিয়েছেন কয়েকটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্যরা। তাঁরা প্রতিনিয়ত তীব্র লড়াই করে চলেছেন সমাজ সংস্কারের লক্ষ্যে। ওই যুবতিদের সমাজের মূলস্রোতে ফিরিয়ে নতুন জীবন ফিরিয়ে দেওয়ার শপথ নিয়েছেন তাঁরা। এইসব ফিরে আসা মেয়েদের পুনর্বাসন ও তাঁদের রুজি রোজগার করার জন্য ইতিমধ্যে রাজ্য সরকারের তরফে ওই যুবতিদের ঘর দেওয়া হয়েছে। সরকারিভাবে মাসে মাসে জিআর পাচ্ছেন। কিছু অর্থেরও অনুদান পাচ্ছেন। কারও স্বামী ঘরে তোলেন না। কারও বাবা-মা মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। তাঁদের থেকে গ্রামের মানুষ সামাজিক বয়কটের ডাক দিয়েছেন। তাই তাঁরা নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে একদিকে এই বাস্তব জীবন তুলে ধরেছেন। অন্যদিকে, নিজেরা সেলাইয়ের কাজ করে নিজেদের জীবন বাঁচানোর সংকল্প নিয়েছেন। পাচার হওয়া মেয়েদের দাবি, এই ঘটনায় অভিযুক্তরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আদালতের কাছে ওই যুবতিদের আবেদন, দ্রুত অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হোক।