পৃথক পথদুর্ঘটনায় গুরুতর জখম এক শিশু সহ ৪

188
প্রতিকী ছবি

রায়গঞ্জ: দুটি পৃথক পথ দুর্ঘটনায় এক শিশু সহ চারজন গুরুতর জখম হলেন। দুর্ঘটনা দুটি উত্তর দিনাজপুরের ইটাহার থানা এলাকার ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের গোটলু মোড় ও দুর্গাপুর এলাকার।

এদিন ছেলেকে সুস্থ করে বাড়ি ফিরে যাওয়ার পথে দুর্ঘটনায় গুরুতর জখম হন একই পরিবারের তিনজন। বর্তমানে তাঁরা রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের শল্য বিভাগে চিকিৎসাধীন। হাসপাতাল সূত্রে খবর, জখমদের নাম মন্দিরা অধিকারী (ভট্টাচার্য্য),পলাশ অধিকারী ও পীযূষ অধিকারী। তাঁদের বাড়ি ইটাহার থানার ভদ্রশিলা গ্রামে।

- Advertisement -

পরিবার সূত্রে খবর, বুধবার রাতে দুই বছরের শিশু মাছের কাটা গলায় আটকে থাকায় অসহ্য যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছিল। গভীর রাতে ওই শিশুকে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বৃহস্পতিবার সকালে নাক,কান,গলা বিশেষজ্ঞ এসপি দাস শিশুর গলায় আটকে থাকা মাছের কাঁটা বের করে দেন। এরপর শিশুকে ছুটি দেওয়া হয়। এরপর তাঁরা নিজেদের চারচাকা গাড়িতে করে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। কিন্তু ইটাহারের অদূরে চারচাকা গাড়ির সামনের চাকা ফেটে নয়ানজুলিতে পড়ে যায়। ঘটনায় মন্দিরা দেবীর মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হওয়ায় উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজে স্থানান্তর করা হয়েছে। দুর্ঘটনাগ্রস্ত গাড়িটিকে উদ্ধার করেছে ইটাহার থানার পুলিশ।

অপরদিকে, আরও একটি পথ দুর্ঘটনায় গুরুতর জখম হন এক ট্রাক চালক। এদিন বিকেলে ইটাহার থানার দুর্গাপুর এলাকার ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের ঘটনা। গুরুতর জখম অবস্থায় ট্রাক চালক রফিকুল শেখকে উদ্ধার করে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু কর্তব্যরত অস্থি বিশেষজ্ঞ গোপাল পোদ্দার মালদা মেডিকেল কলেজে আহতকে স্থানান্তরের নির্দেশ দেন।

সূত্রের খবর, জখম ওই লরি চালকের নাম রফিকুল শেখের বাড়ি ঝাড়খণ্ডের পাকুর জেলার তিলভিট্টা গ্রামে। অস্থি রোগ বিশেষজ্ঞ গোপাল পোদ্দার বলেন, “ওই গাড়িচালকের বাঁ পা গুরুতর জখম হয়েছে। পা কাটা ছাড়া উপায় নেই। কিন্তু পা কাটতে গেলে পরিবারের অনুমতির প্রয়োজন। বাড়ির কেউ না থাকায় ওই গাড়ি চালককে মালদা মেডিকেল কলেজে রেফার করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, ফারাক্কা থেকে ছাঁই নিয়ে রায়গঞ্জে আসছিল ওই গাড়ি চালক। ইটাহার থানার দুর্গাপুর এলাকার ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের উপরে গাড়িটির যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা যায়। গাড়ী চালক গাড়ি থেকে নেমে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখতে শুরু করেন। সে সময় বিপরীত দিক থেকে আসা একটি লরির চাকায় পিষ্ট হয়ে গুরুতর জখম হন ওই চালক। গাড়িটিকে আটক করতে পারেনি ইটাহার থানার পুলিশ।