কুমারগঞ্জে ফের করোনা আক্রান্তের হদিস

479

সাজাহান আলি, পতিরাম: প্রায় এক সপ্তাহ পর ফের ৫ জন করোনা আক্রান্তের হদিস কুমারগঞ্জ ব্লকে। এই নিয়ে কুমারগঞ্জে মোট করোনা সংক্রমিতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ২০। ব্লক স্বাস্থ্যদপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, আক্রান্তদের ৪ জনের বাড়ি ভোঁওর গ্রাম পঞ্চায়েতের ঝাড়া গ্রামে। অন্য একজনের বাড়ি বটুন গ্রাম পঞ্চায়েতের সৈয়দপুর এলাকায়। এদের প্রত্যেকেই ভিন রাজ্য ফেরত শ্রমিক বলে জানা গিয়েছে। স্বাস্থ্য দপ্তর তাদের বালুরঘাটের নাট্য উৎকর্ষ কেন্দ্রে রেখে চিকিৎসা শুরু করেছে। পাশাপাশি এদের সংস্পর্শে আসা পরিবারের লোকজনদের কুমারগঞ্জের বরাহর কিষাণ মান্ডি সরকারি কোয়ারান্টিন সেন্টারে নিয়ে আসা হয়েছে। এখানে মোট ৩৮ জন রয়েছে বলে খবর। ঝাড়া গ্রামকে কন্টেনমেন্ট জোন করার ব্যবস্থা করছে প্রশাসন।

কুমারগঞ্জে ইতিমধ্যেই বিভিন্ন রাজ্য থেকে প্রায় ৯ হাজারের বেশি শ্রমিক ফিরে এসেছেন। এদের মধ্যে যারা করোনা সংক্রামিত হয়েছেন তাদের সিংহভাগ বাইরে থেকে ফিরেছেন। এদের মধ্যে ১ জন দক্ষিণবঙ্গ ফেরত ছাত্র। তবে শেষ ৫ জন বাদে আগের সকলেই সুস্থ হয়ে বাড়িতে রয়েছেন। কিন্তু কুমারগঞ্জ ব্লকে করোনা সংক্রমণ বেড়ে চললেও বেশিরভাগ মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে কোন রকম হেলদোল নেই। স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করার প্রতিযোগিতা চলছে যেন।

- Advertisement -

কুমারগঞ্জ ব্লকের গোপালগঞ্জ বাজার, সাফানগর, চাঁদগঞ্জ, এলেনদারি বাজার, বরাহর, মোহনা, ডাঙ্গারহাট, ইচ্ছামতী বাজার, মোল্লাদিঘি, পুনতরহাট, বটুন, উজিরপুর, মাধবপুর, মাদারগঞ্জ ইত্যাদি সব জায়গায় স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছেনা বলে অভিযোগ। মার্চ মাসের শেষের দিকে প্রথম করোনা আক্রান্তের খবরে ভীতি ছড়িয়ে পড়েছিল। কিন্তু এই জুন মাসের শেষ পর্বে এসে মানুষের বেপরোয়া মনোভাব, স্বাস্থ্য বিধিকে তোয়াক্কা না করার বিষয়টি কুমারগঞ্জে খুব বেশি করে চোখে পড়ছে।

এ বিষয়ে বিডিও দেবদত্ত চক্রবর্তী বলেন, টাস্ক ফোর্স গঠন করার পর প্রতি শুক্রবার বিকেল ৪টায় মিটিংয়ে বসে সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে পর্যালোচনা করা হচ্ছে। কুমারগঞ্জের বিভিন্ন হাটে করোনা সচেতনতা অভিযান চালিয়ে মানুষজনকে সচেতন করা হবে।