পোষ্য হিসেবে মেলেনি চাকরি, বিক্ষোভে ৬০টি পরিবার

58

দূর্গাপুর: কারও স্বামী, আবার কারও বাবা স্থায়ী কর্মী হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন দূর্গাপুর পুরনিগমে। কর্মরত অবস্থায় মৃত্যু হয়েছিল তাঁদের। এই সংখ্যাটা ৬০-র মতো। অভিযোগ, ওই সকল কর্মীদের মৃত্যুর পর দীর্ঘ সময় পেড়িয়ে গেলেও তাঁদের পরিবারের কোন সদস্যই এখনও অবধি সরকারি আইন মোতাবেক পোষ্য হিসাবে চাকরি পাননি সংশ্লিষ্ট দপ্তরে। যদিও পরিবারগুলির দাবি, ২০১১ সালে তৃণমূল কংগ্রেস দূর্গাপুর পুরনিগমে ক্ষমতায় আসার পর প্রতিশ্রুতি দিয়ে বলা হয়েছিল, কর্মরত অবস্থায় মৃত কর্মীদের পরিবারের সদস্য়রা পোষ্য হিসেবে তাঁরা কাজ পাবেন। অভিযোগ সেই প্রতিশ্রুতি আর রাখা হয়নি। তারই প্রতিবাদে শুক্রবার দূর্গাপুর পুরনিগমের সামনে বিক্ষোভে সামিল হলেন পোষ্যরা।

সম্প্রতি দূর্গাপুর পুরনিগম বিজ্ঞপ্তি জারি করে স্পষ্ট করেছে, ১৩৫টি শূন্য পদে লোক নিয়োগ করা হবে। এরপরেই অগ্রাধিকারের বিষয় তুলে ধরে পথে নামলেন তাঁরা। সরকারি আইন মোতাবেক পোষ্য হিসাবে চাকরির দাবি জানিয়ে স্বেচ্ছা মৃত্যুর হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন তাঁরা। একইসঙ্গে, তাদের দাবি না মানা অবধি আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কথাও স্পষ্ট করেছেন। এই বিষয়কে সামনে রেখে আন্দোলনকারীদের তরফে ভাস্কর দাস অভিযোগ করে বলেন, ‘যদি নতুন করে কর্মী নিয়োগ করা হয় তাহলে কেন আমাদের নায্য দাবীকে উপেক্ষা করা হচ্ছে।’

- Advertisement -

পোষ্যদের চাকরির দাবিতে চলা আন্দোলনে নিয়ে কোনোরকম প্রতিক্রিয়া দিতে নারাজ দূর্গাপুর পুরনিগমের প্রশাসক মণ্ডলীর চেয়ারম্যান দিলীপ অগস্থি সহ পুর কর্তৃপক্ষ।