ভোটের প্রশিক্ষণে অনুপস্থিত ৮০০ কর্মীকে শোকজ

139

রায়গঞ্জ: নির্বাচনের প্রশিক্ষণে অনুপস্থিত থাকা ভোট কর্মীকে শোকজ নোটিশ পাঠাতে শুরু করল জেলা নির্বাচন দপ্তর। শিক্ষক থেকে শুরু করে সহকারি শিক্ষক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, ব্যাংকের উচ্চপদস্থ অফিসার থেকে শুরু করে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মী, চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের নাম রয়েছে নোটিশে। দ্বিতীয় পর্যায়ের প্রশিক্ষণে অনুপস্থিত কর্মীরা ওই নোটিশ বুধবার রাত ৮টা নাগাদ থেকে পেতে শুরু করেছেন। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে শোকজ নোটিশের লিখিত জবাব না দেওয়া হলে জনপ্রতিনিধিত্ব আইন অনুযায়ী পদক্ষেপ করা হবে বলে জেলা নির্বাচন দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে। এদিন সন্ধ্যে থেকেই প্রিসাইডিং অফিসার ও ফাস্ট পোলিং অফিসার মিলে মোট ৮০০ জনকে শোকজ করেছে জেলা নির্বাচন দপ্তর।

অতিরিক্ত জেলা শাসক সাধারণ অলঙ্কৃতা পান্ডে বলেন, ‘প্রিসাইডিং ও ফাস্ট পোলিং মিলে ৮০০ জনকে শোকজ করা হয়েছে যদিও এই সংখ্যা আরও বাড়বে। ই-মেল ও মোবাইল মারফত শোকজ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার থেকে শোকজের চিঠি বিভিন্ন ব্লক প্রশাসনের তরফ থেকে দেওয়া হবে। প্রিসাইডিং অফিসার ৪৭৮ জন, ফাস্ট পোলিং অফিসার ২৯০ জনকে এই মুহূর্তে শোকজ করা হয়েছে। সেকেন্ড পোলিং অফিসার ও থার্ড পোলিং অফিসারের অনুপস্থিতির হিসেব চলছে। জেলা নির্বাচন দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রিসাইডিং এবং ফাস্ট পোলিং প্রথম পর্যায়ে প্রায় ১০০০ জনের মত অনুপস্থিত ছিল। এখানে দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রেনিংয়ে ৮০০ জন অনুপস্থিত রয়েছেন।

- Advertisement -

জেলা শাসক(সাধারণ) অলঙ্কৃতা পান্ডে বলেন, ‘প্রথম পর্যায়ের শোকজের পরেও যারা দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রেনিংয়ে অনুপস্থিত রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে এফআইআর করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।’ উল্লেখ্য, উত্তর দিনাজপুর জেলায় ভোট কর্মীদের প্রশিক্ষণের কাজ শুরু হয়েছিল ২০ ফেব্রুয়ারি থেকে দফায় দফায় চলছে প্রিসাইডিং অফিসার ও অন্য পোলিং অফিসারদের প্রশিক্ষণ। চলতি মাসের ১০ তারিখ থেকে ভোট কর্মীদের নিয়োগ পত্র পাঠাতে শুরু করেছে জেলা নির্বাচন দপ্তর। করোনা পরিস্থিতির জেরে ভোটের বুথের সংখ্যা এক ধাক্কায় অনেকটা বেড়ে যাওয়ায় এবার বিধানসভা নির্বাচনে পরিচালনার জন্য প্রয়োজনীয় ভোট কর্মীর সংখ্যাও অনেকটা বেশি।