মাদারিহাটে ভোট পড়ল ৬৯.৫১ শতাংশ

112

রাঙ্গালিবাজনা: আলিপুরদুয়ার জেলার মাদারিহাট বিধানসভা কেন্দ্রে ভোটদানের হার কমল। ২০১১ সালে ৮২.৫৭ শতাংশ, ২০১৬ সালে ৭৯.৪৫ শতাংশ ভোট পড়েছিল মাদারিহাটে। কিন্তু শনিবার রাত পৌনে দশটা নাগাদ পাওয়া প্রশাসনিক রিপোর্ট মোতাবেক, মাদারিহাটে ভোট পড়েছে ৬৯.৫১ শতাংশ।

প্রসঙ্গত, মাদারিহাটে এবার মোট ভোটার ছিলেন প্রায় ২ লক্ষ ১২ হাজার। ২৯৮ টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হয়। কিন্তু রেকর্ড সংখ্যায় ভোট কমায় চিন্তায় পড়েছে সব রাজনৈতিক দলই। এদিন সকাল থেকেই বিজেপির মনোজ টিগ্গা, তৃণমূলের রাজেশ লাকড়া, সংযুক্ত মোর্চার সুভাষ লোহার চা বাগানের বুথে বুথে ঘুরতে থাকেন। গয়েরকাটার একটি বুথে শাসক দলের প্রতীক সহ স্লিপ নিয়ে ভোট কেন্দ্রে ভোটারদের ঢুকতে দেখা গিয়েছে বলে অভিযোগ সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী সুভাষ লোহারের।

- Advertisement -

এদিকে, বীরপাড়ার মহাবীর হিন্দি হাইস্কুলের পাঁচটি বুথে সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিদের ঢুকতে বাধা দেয় কেন্দ্রীয় বাহিনী। মাদারিহাটের বিডিও এবং আলিপুরদুয়ারের জেলাশাসকের কাছে অভিযোগ করার কিছুক্ষণ পরই অবশ্য প্রিসাইডিং অফিসারদের কাছে পৌঁছে যায় অনুমোদনপ্রাপ্ত সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিদের নামের তালিকা।

নাংডালা চা বাগানের ১৬৯ নং বুথে ভিভিপ্যাট বিগড়ে যাওয়ায় প্রায় ১ ঘণ্টা পর ভোটগ্রহণ শুরু হয়। ইসলামাবাদ গ্রামের ৮২ নম্বর বুথে ২০৭টি ভোট পড়ার পরই যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ভোটগ্রহণ বন্ধ হয়ে যায়। পরে ইভিএমের পুরো সেটটি পালটে ফের ভোটগ্রহণ শুরু হয়। তবে ভোট নিয়ে অশান্তির খবর মেলেনি। বিশেষ করে চা বাগানে পরিবেশ ছিল সবচেয়ে বেশি শান্তিপূর্ণ। এদিন সকাল থেকেই ভোটগ্রহণ কেন্দ্রগুলিতে ভিড় লক্ষ্য করা গিয়েছে। তবে তাপমাত্রা বেশি থাকায় নাকাল হতে হয় ভোটারদের। বিকেল পাঁচটা থেকে ঝড় ও শিলাবৃষ্টির জন্য ভোটাররা বিপাকে পড়েন। অবশ্য প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে ভোটগ্রহণ বন্ধের খবর মেলেনি। তবে বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ পরিষেবা ব্যাহত হয়।