মনোনয়ন পেশ চার বিধানসভার ৭ প্রার্থীর

95

দুর্গাপুর: দুর্গাপুর মহকুমাশাসকের কার্যালয়ে তৃণমূল কংগ্রেস ও বিজেপি প্রার্থীদের মনোনয়ন পত্র জমা নেওয়া হল। সোমবার মনোনয়নপত্র জমাকে কেন্দ্র করে কার্যত উৎসবের চেহারা নেয় দুর্গাপুরের একাংশ। এদিন জেলার তিনটি বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থীরা মিছিল করে মহকুমাশাসকের কার্যালয়ে মনোনয়ন পেশ করেন। দুর্গাপুর পূর্ব কেন্দ্রের প্রার্থী প্রদীপ মজুমদার ঘোড়ার গাড়িতে চড়ে ঢাক ঢোল বাজিয়ে মনোনয়ন পত্র জমা দিতে আসেন। তাঁর মিছিলে কয়েক হাজার কর্মী ও সমর্থক সামিল হয়। এরপর আসে দুর্গাপুর পশ্চিম কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী বিশ্বনাথ পাড়িয়াল। তাঁর মিছিলে সামিল হয়েছিলেন তৃণমূলের নেতা কর্মী সহ তৃণমূল সমর্থকরাও। ঢাক ঢোল তাসা পার্টির সঙ্গে খেলা হবে গানের সঙ্গে চলতে থাকে নাচ। কিছুক্ষণ পরই গোটা সিটি সেন্টার চত্বর ঘুরে মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসে পাণ্ডবেশ্বর কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী নরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী।

পাশাপাশি, এদিন বিশাল মিছিল করে চারটি বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপির প্রার্থীরা এক সঙ্গে মহকুমাশাসকের কার্যালয়ে মনোনয়ন পত্র জমা দেন। দুর্গাপুর পূর্ব কেন্দ্রের কর্ণেল দীপ্তাংশু চৌধুরী, দুর্গাপুর পশ্চিম কেন্দ্রের লক্ষণ ঘোড়ুই, পাণ্ডবেশ্বর বিধানসভা কেন্দ্রের জিতেন্দ্র তিওয়ারি ও রানিগঞ্জের বিজেপি প্রার্থী বিজন মুখোপাধ্যায় মনোনয়ন পত্র জমা দেন। তাঁরাও ঢাকঢোল নিয়ে মহাসমারোহে মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসেন হুড খোলা ভ্যানে চেপে। মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার সময় প্রার্থীদের সঙ্গে আসেন মধ্যপ্রদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নরোত্তম মিশ্র।

- Advertisement -

এরইমধ্যে মহকুমাশাসকের কার্যালয়ের সামনে তৃণমূল কংগ্রেস ও বিজেপি সমর্থকরা মুখোমুখি হতেই তাদের মধ্যে শুরু হয়ে যায় চিৎকার ও বাকবিতন্ডা। স্লোগান নিয়ে চলে দু’পক্ষের মধ্যে ক্ষমতা দেখানোর লড়াই। ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরিস্থিতি সামাল দিতে নামানো হয় কমব্যাট ফোর্স। আসানসোল দুর্গাপুর পুলিশের ডিসিপি অভিষেক গুপ্তা, এসিপি সহ দুর্গাপুর থানার পুলিশ আধিকারিকরা ঘটনাস্থলে আসেন। দুই দলকেই সামাল দেয় পুলিশ। প্রথমে তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী, সমর্থক ও নেতাদের এলাকা থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। এরপর সরানো হয় বিজেপি নেতা ও কর্মীদেরও।