আত্মঘাতী কিশোর! বর্বরোচিত নির্যাতনের শিকার নাবালিকা, ধৃত ৭

94

বর্ধমান: কিশোর আত্মঘাতী হওয়ায় এক নাবালিকার উপর বর্বরোচিত নির্যাতন চালানোর অভিযোগে গ্রেপ্তার ৭ মহিলা। ধৃতরা শহর বর্ধমানের কাঁটাপুকুর এলাকার বাসিন্দা। বুধবার রাতে তাদের গ্রেপ্তার করে বর্ধমান থানার পুলিশ। বৃহস্পতিবার ধৃতদের বর্ধমানের পকসো আদালতে পেশ করা হয়। জামিনের আবেদন খারিজ করে ভারপ্রাপ্ত বিচারক নন্দন দেব ধৃতদের বিচার বিভাগীয় হেপাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বর্ধমান শহরের গিমটিফটক এলাকার এক কিশোরীর সঙ্গে ভালোবাসার সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল কাঁটাপুকুরের বাসিন্দা এক কিশোরের। বিষয়টি জানাজানি হতেই কিশোরের পরিবার বিয়ের প্রস্তাব দিলেও কাশোরী প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়ায় তাঁর পরবিবার রাজি হয়নি। এরপরেই গত শনিবার রাতে ওই কিশোর হোয়াটসঅ্যাপে কল করে নাবালিকাকে বিয়ের কথা জানায়। নাবালিকা তাতে রাজি না হওয়ায় ভিডিওকল চালু রেখেই শাড়ি দিয়ে গলায় ফাঁস লাগায় ওই কিশোর। বিষয়টি নজরে আসতেই তড়িঘড়ি তাঁকে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করেন। পরদিন ময়নাতদন্তের শেষে কিশোরের মৃতদেহ নিয়ে কিশোরীর বাড়িতে হাজির হন জনাকয় ব্যক্তি। মারধর করার অভিযোগ ওঠে নাবালিকা সহ তার মা’কে। অন্যদিকে, মৃতদেহের সামনে কিশোরীকে শাঁখা-পলা পরানোর পাশাপাশি কিশোরের পায়ে সিঁদুর দিয়ে তা কিশোরীকে মাথায় নিতে বাধ্য করা হয়। পরে তা মৃতের পা দিয়েই মুছিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি শাঁখা-পলা ভেঙে দেওয়া হয়। ঘটনার পরেই ওই নাবালিকার মা বর্ধমান থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। সেই অভিযোগের প্রেক্ষিতে পকসো অ্যাক্টে মামলা রুজু পুলিশ তদন্তে নেমে ৭ মহিলাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

- Advertisement -