মুর্শিদাবাদ, কেরল থেকে এনআইএ-র জালে ৯ আল কায়দা জঙ্গি

633

নয়াদিল্লি: এই রাজ্যে বসেই চলছিল নাশকতার ছক। মুর্শিদাবাদ এবং কেরল থেকে আল কায়দার নয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করল জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ)। শনিবার পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদে এবং কেরলের এর্নাকুলামের একাধিক জায়গায় অভিযান চালানো হয় বলে এনআইএ-র তরফে জানানো হয়েছে।

আল কায়দার যে সদস্যদের মুর্শিদাবাদ ও এর্নাকুলাম থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, তারা হল-মুরশিদ হাসান, ইয়াকুব বিশ্বাস, মোসারফ হোসেন, নাজমুস শাকিব, আবু সুফিয়ান, মইনুল মণ্ডল লিউ ইয়ান আহমেদ, আল মামুন কামাল এবং আতিতুর রেহমান। এদের মধ্যে মুরশিদ, ইয়াকুব, মোসারফকে কেরল থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। নাজমুস শাকিব, আবু সুফিয়ান, মইনুল মণ্ডল লিউ ইয়ান আহমেদ, আল মামুন কামাল এবং আতিতুর রেহমানের বাড়ি মুর্শিদাবাদের ডোমকল এবং জলঙ্গি এলাকায়। ধৃতদের এদিন মুর্শিদাবাদ আদালতে পেশ করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ। পাশাপাশি জেলার আরও কয়েকটি এলাকায় তল্লাশি চালাতে পারে এনআইএ।

- Advertisement -

জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা এক বিবৃতিতে জানায়, ‘পশ্চিমবঙ্গ এবং কেরল সহ দেশের বেশ কয়েকটি জায়গায় আল-কায়দার আন্তঃরাজ্য সক্রিয় চক্র গড়ে উঠেছে বলে আমাদের কাছে খবর আসে। পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ এবং কেরলের এর্নাকুলামে বেশ কয়েকটি জায়গায় অভিযান চালানো হয়। দেশে জঙ্গি হামলা চালিয়ে বিভিন্ন জায়গায় নিরীহ সাধারণ মানুষদের মারার পরিকল্পনা করছিল এই চক্রটি।’

তাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণে ডিজিটাল ডিভাইস, তথ্য, জিহাদি পত্রিকা, ধারালো অস্ত্র, বিস্ফোরক বানানোর পদ্ধতি নিয়ে লেখা একাধিক বই সহ বিভিন্ন জিনিস পাওয়া গিয়েছে। পাশাপাশি এনআইএ-র তরফে জানানো হয়, সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই পাকিস্তানের আল কায়দা গোষ্ঠী এদের সন্ত্রাসবাদী মতাদর্শে চালিত করে এবং বিভিন্ন জায়গায় হামলা চালানোর জন্য উদ্ব‌ুদ্ধ করে। দিল্লিতেও খুব শিগগিরই তাদের হামলার পরিকল্পনা ছিল বলে জানা গিয়েছে। তারা আর কার কার সঙ্গে যুক্ত রয়েছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তাদের গ্রেপ্তার করায় দেশে বেশ কয়েকটি সম্ভাব্য জঙ্গি হামলা আটকে দেওয়া গেল বলে জানিয়েছে এনআইএ। পাশাপাশি গোটা দেশে আর কোথায় কোথায় এই চক্রের জাল রয়েছে তাও তদন্ত করে দেখছেন গোয়েন্দারা। বেশ কয়েক বছর আগে মুর্শিদাবাদের জঙ্গিপুর থেকে মুজাহিদ্দিন-এর জঙ্গিদের গ্রেপ্তার করেছিল এনআইএ।