দেওরের বিরুদ্ধে বৌদিকে কুপিয়ে খুনের অভিযোগ

হবিবপুর: দেওরের বিরুদ্ধে বৌদিকে খুনের অভিযোগে চাঞ্চল্য ছড়াল হবিবপুরে। মৃতের নাম সন্ধ্যা সরকার (৩৩)। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, হবিবপুর থানার রিশিপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের শক্তিগড় ডুবাপাড়া এলাকায় মঙ্গলবার ভোরের দিকে এই ঘটনা ঘটেছে।

হবিবপুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ঘর থেকে হাঁসুয়া দিয়ে এলোপাথাড়ি কোপানো গৃহবধূর রক্তাক্ত মৃতদেহটি উদ্ধার করে। এলাকা থেকেই গ্রেপ্তার করা হয় গৃহবধূর দেওর ঈশ্বর সরকারকে (২৬)। পুলিশ জানিয়েছে, বৌদিকে খুনের কথা স্বীকার করেছেন দেওর। কী কারণে খুন করা হয়েছে বৌদিকে তার রহস্যভেদ করতে ধৃতকে দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করছে হবিবপুর থানার পুলিশ।

- Advertisement -

এদিকে এলাকাবাসীরা এমন ঘটনায় হতবাক। তাঁদের অনেকেই জানান, শক্তিগড় ডুবাপাড়া এলাকার বাসিন্দা যাদব সরকার এবং তাঁর ভাই ঈশ্বর সরকার একই বাড়িতে সপরিবারে থাকেন। ঈশ্বর অবিবাহিত। যাদববাবু বিবাহিত। তিনি তাঁর স্ত্রী সন্ধ্যাদেবী এবং দুই ছোট মেয়েকে নিয়ে থাকতেন। স্থানীয় মানুষজনের কথায়, কৃষি শ্রমিকের কাজ করে সংসার চলত ওই পরিবারের। খড়ের ছাউনি আর পাটকাঠির বেড়ার উপর মাটির প্রলেপ দেওয়া ঘর।

সকালে পুলিশ দেখে তাঁরা এদিন জানতে পারেন, ওই বাড়ির গৃহবধূ সন্ধ্যা দেবী খুন হয়েছেন। ভোরে হাঁসুয়া দিয়ে কুপিয়ে খুনের ঘটনা ঘটলেও ওই বাড়ির লোকজনের কোনও চিৎকার বা আওয়াজ না পাওয়ার ঘটনা ভাবিয়ে তুলেছে অনেককে। অনেকের মতে, কোনও আওয়াজ বা চিৎকার হলে ভোরের ঘটনা জানাজানি হত। যদিও সকলেই আশাবাদী, পুলিশি তদন্তে সমস্ত সত্য বেড়িয়ে আসবে।

হবিবপুর থানার আইসি পূর্ণেন্দু মুখার্জি বলেন, শক্তিগড় ডুবাপাড়া এলাকায় বছর তেত্রিশের এক গৃহবধূ খুন হয়েছেন। ধারালো হাঁসুয়া দিয়ে তাঁকে কুপিয়ে খুন করা হয়েছে। মৃতের বাবা মনোরঞ্জন সরকারের অভিযোগের ভিত্তিতে খুনের মামলা রুজু করা হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে মৃতের দেওর ঈশ্বর সরকারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হয়েছে রক্তাক্ত হাঁসুয়া। মৃতদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার তদন্ত চলছে।