হবিবপুর, ৭ ডিসেম্বর: স্যোশাল মিডিয়ায় স্ত্রী, সহ শ্বশুরবাড়ির কয়েকজনের বিরুদ্ধে মানসিক নির্যাতনের অভিযোগ লিখে আত্মহত্যা করল এক শিক্ষক। এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে হবিবপুরে। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে আত্মঘাতী শিক্ষকের নাম দেবাশিস পোদ্দার (৪২)। তিনি হবিবপুর থানার বুলবুলচণ্ডী গ্রাম পঞ্চায়েতের কেন্দুয়া পূর্বপাড়া এলাকার বাসিন্দা ছিলেন। তাঁর শ্বশুরবাড়ি বামনগোলা থানার পাকুয়াহাটে। তিনি আইহো হাই অ্যাচাটড্ প্রাইমারি স্কুলে তিনি শিক্ষকতা করতেন। শুক্রবার গভীর রাতে তিনি গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ। আত্মঘাতী হওয়ার আগে তিনি স্যোশাল মিডিয়ায় স্ত্রী সহ শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় অপমান সহ, মানসিক নির্যাতনের অভিযোগ পোস্ট করায় রাতেই শোরগোল পড়ে যায়। অনেকেই যখন খোঁজ খবর নিতে শুরু করেছেন ততক্ষণে সব শেষ। খবর পেয়ে রাতেই পৌঁছায় হবিবপুর থানার পুলিশ। মৃতদেহ উদ্ধার করে শনিবার সকালে মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মালদা মেডিক্যাকলেজ হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ। এদিকে মৃতের কাকা যোগেন্দ্রনাথ পোদ্দার ভাইপোর মৃত্যুর জন্য ভাইপোর স্ত্রী, শাশুড়ি ও দুই শ্যালকের বিরুদ্ধে শনিবার হবিবপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগ পেয়েই তদন্তে নেমে মৃত দেবাশিসবাবুর এক শ্যালক নরোত্তম সরকারকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে পুলিশ। এদিকে মৃত দেবাশিসবাবুর শ্বশুরবাড়ির লোকজনের কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি এদিন।