চেল নদীতে পড়ে কিশোরের মৃত্যু

1291

মালবাজার: বৃহস্পতিবার বিকালে কালিম্পং জেলার গরুবাথানের চেল নদীতে ভেসে গিয়ে ১৫ বছর বয়সী এক কিশোরের মৃত্যু হল। গরুবাথান থানার পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃতের নাম সন্দার্ভ সরকার (১৫)। বাড়ি জলপাইগুড়ির অরবিন্দ নগর এলাকায়। সে পরিবারের সঙ্গে ঘুরতে এসেছিল। ঘটনায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে জলপাইগুড়িতে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার জলপাইগুড়ি এলাকার তিনটি পরিবার কালিম্পং জেলার গরুবাথান এলাকায় ঘুরতে আসে। আপার ফাগুর চেল মুক্তি ব্রিজের কাছে পিকনিক স্পটে ওই তিনটি পরিবারের সদস্যরা সময় কাটান। পাশ দিয়েই বয়ে গিয়েছে পাহাড়ি চেল নদী। গত কয়েক দিন ধরে পাহাড়ে বৃষ্টির জেরে নদীতে স্রোত এখন অনেকটাই বেশি।

- Advertisement -

এদিন হঠাৎ করে সন্দার্ভ সরকার নামে ওই কিশোর পা পিছলে নদীতে পড়ে যায়। তার বাবা নির্মাল্য সরকার জলপাইগুড়ি পুরসভার ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের প্রাক্তন সিপিএম কাউন্সিলার। জলপাইগুড়ি আনন্দ চন্দ্র কলেজের অশিক্ষক কর্মচারী। তিনিও ছেলেকে বাঁচাতে নদীতে ঝাঁপিয়ে পড়েন। তবে তার আগেই সন্দার্ভ ভেসে যায়। নির্মাল্যবাবু চোট পান। এরপর স্থানীয় লোকজন এবং পুলিশ উদ্ধার কাজ শুরু করে। ঘটনাস্থল থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে গরুবাথানের সোমবাড়ি বাজার লাগোয়া গোসখান এলাকার পাশে চেল নদী থেকে ওই কিশোরকে উদ্ধার করা হয়। এরপর গরুবাথান হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

গরুবাথান থানার ওসি সৌরভ ঘোষ জানান, নদীর স্রোতে ভেসে গিয়ে ওই কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখজনক। প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে, ওই কিশোর হাত ধুতে গিয়ে পা পিছলে নদীতে পড়ে যায়। এদিন চেল নদীতে স্রোত অনেকটাই বেশি ছিল। শুক্রবার দেহ ময়নাতদন্তে পাঠানো হবে। ঘটনার তদন্ত চলছে।

এদিকে, ওই কিশোরের মৃত্যুতে জলপাইগুড়ি শহরে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। নির্মাল্যবাবু এবং তাঁর পরিবারের সদস্যরা শোকস্তব্ধ। কয়েক বছর আগে নির্মাল্যবাবুর পত্নীবিয়োগ হয়েছিল। নির্মাল্যবাবু প্রাক্তন সিপিএম কাউন্সিলার। জলপাইগুড়িতে তাঁর পরিচিতরা রাতেই গরুবাথান পৌঁছতে শুরু করেছেন। সিপিএমের জলপাইগুড়ি জেলা কমিটির সম্পাদক সলিল আচার্য বলেন, ‘অত্যন্ত দুঃখজনক ঘটনা।’