রাজবংশী মুখ তুলে আনতে বিশেষ দায়িত্ব দিলেন অভিষেক

275

মণীন্দ্রনারায়ণ সিংহ, আলিপুরদুয়ার : বিধানসভা ভোটের আগে আলিপুরদুয়ারে প্রত্যেক অঞ্চল থেকে গ্রহণযোগ্য রাজবংশী মুখ তুলে আনার পরামর্শ দিলেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এছাড়াও বিভিন্ন জনজাতির ভোটের দিকে বিশেষ নজর রাখতে দলের জেলা নেতাদের পৃথকভাবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সামনের বিধানসভা নির্বাচনে বিশেষ কোনও জনজাতি, গোষ্ঠীর ভোটে থাবা বসিয়ে বিরোধীরা যাতে বাড়তি সুবিধা নিতে না পারে, তার জন্যই এই দাওয়াই বলে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। মঙ্গলবার দলের জেলা নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে অভিষেক প্রত্যেকটি জনজাতির সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক স্থাপনের বিশেষ দায়িত্ব ভাগ করে দিয়েছেন। তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি মৃদুল গোস্বামী বলেন, বিভিন্ন জনজাতির মানুষের কাছে রাজ্যের বিভিন্ন সরকারি প্রকল্প তুলে ধরা হবে। তৃণমূল কংগ্রেস বিভিন্ন জনজাতিকে সাংগঠনিক কাজের প্রতিনিধিত্বে সব সময় গুরুত্ব দিয়েছে।

তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, জেলা সভাপতি মৃদুল গোস্বামী ও ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়কে রাজবংশী ভোটে নজর রাখতে বিশেষ দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ওই দুই নেতাকেই রাজবংশী অন্য দুই নেতা পীযূষ রায় ও সুরেশ রায়কে সঙ্গে নিয়ে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ভালো রাজবংশী নেতা তুলে আনার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। প্রকাশ চিকবড়াইককে আদিবাসী ভোটের উপর নজর রাখতে বিশেষ দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।   পাশাং লামাকে নেপালি জনজাতির ভোটের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। মোহন শর্মা ও নকুল সোনারকে চা বাগানের ভোটব্যাংকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তপশিলি জাতি-উপজাতির বাইরে সাধারণ শ্রেণির ভোটারদের সঙ্গেও নিবিড় সম্পর্ক করতে বলা হয়েছে আলিপুরদুয়ারের বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তীকে। বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানে নিবিড় যোগাযোগ ও অংশগ্রহণ করতেও বলা হয়েছে সৌরভকে। বিধানসভা ভোটে কোনও জনজাতি গোষ্ঠীর ভোট না পেলে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাকেই তার দায় নিতে হবে বলে অভিষেক সতর্ক করে দিয়েছেন।

- Advertisement -

কিছুদিন আগেই দলের জেলা সহ সভাপতি নিরঞ্জন দাস প্রকাশ্যে অভিযোগ তুলেছিলেন, দলের জেলা কমিটিতে রাজবংশীদের কোনও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে না। ফলে লোকসভা ভোটের মতো বিধানসভা ভোটেও রাজবংশীরা মুখ ফিরিয়ে নিতে পারেন। প্রকাশ্যেই দলের নেতারা সংগঠনের জনজাতির প্রতিনিধিত্বের বিষয়ে সমালোচনা করায় জেলা নেতৃত্বকেও অস্বস্তি পড়তে হয়। জেলার আলিপুরদুয়ার, ফালাকাটা, কুমারগ্রাম তিনটি বিধানসভা কেন্দ্রে সব রাজনৈতিক দলের কাছেই রাজবংশী ভোটব্যাংক একটা বড় ফ্যাক্টর। গত লোকসভা নির্বাচনে আলিপুরদুয়ারের রাজবংশীরা মুখ ফিরিয়ে নেওয়াতে শাসকদলের প্রার্থীর ভরাডুবি হয়েছিল। দলের জেলা নেতাদের একাংশের অভিযোগ, লোকসভা ভোটে বিপর্যয়ে পরেও দলের জেলা নেতৃত্বের টনক নড়েনি। দলের জেলা নেতাদের অনেকেই উদ্বেগ প্রকাশ করে বিষয়টি রাজ্য নেতৃত্বের নজরে এনেছেন। মঙ্গলবার অভিষেক আলিপুরদুয়ারে এসে সামনের বিধানসভা নির্বাচনে কোনও জনজাতি গোষ্ঠীর ভোট যাতে শাসকদলের হাতছাড়া না হয়, সেজন্য জেলা নেতাদের উপর জনজাতির ভোট নিজেদের পালে টানার দায়িত্ব ভাগ করে দিয়েছেন। তৃণমূল কংগ্রেসের আলিপুরদুয়ারের মুখপাত্র সৌরভ চক্রবর্তী বলেন, দলের নেতৃত্ব যাঁকে যে দায়িত্ব দিয়েছেন, সেটা সকলেই পালন করবেন। আমিও আমার দায়িত্ব পালন করব।