অভিষেকের মুখে ‘পোকামাকড়’! কাকে বললেন তিনি?

141

নাগরাকাটা: নাম না করে নাগরাকাটার দলত্যাগী বিধায়ক শুক্রা মুন্ডাকে পোকামাকড়ের  সঙ্গে তুলনা করলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। শনিবার নাগরাকাটা ইউরোপিয়ান ক্লাব মাঠের জনসভার মঞ্চ থেকে তণমূলের সেকেন্ড ইন কমান্ড বলেছেন, নাম বলবো না। পচা লোক চলে গেছে। আমাদের ক্ষেতের পোকা মাকড় এখন অন্য ক্ষেতে। বাঁচা গেছে।’ আসন্ন নির্বাচনে নাগরাকাটার ভূমিপুত্রকেই এখানে প্রার্থী করা হবে বলেও অভিষেক জানিযে দিয়েছেন। বিজেপিকে নাগরাকাটার জনসভার গর্জন শুনে যাওয়ার কথা বলে যুব তণমূলের সর্বভারতীয় সভাপতি তীব্র কটাক্ষে ভরিয়ে দেন। শুক্রার দলত্যাগকে তণমূল যে চ্যালেঞ্জ হিসেবেই নিয়েছে সেটাও এদিন স্পষ্ট হযে গেছে অভিষেকের ভাষণে। তিনি জানান , যখন বললাম নাগরাকাটাতেই সভা করবো তখন জেলা নেতৃত্ব বলেছিল এখানে নয়। অন্য জাযগায় করুন। আমি বলেছিলাম ১০ জন লোক হলেও এখানেই করবো। মানুষ সঙ্গে থাকলে কে এলো আর কে গেলো তাতে কোন ফারাক পড়ে না। আর পাঁচটা জনসভার মঞ্চের মতো নাগরাকাটা থেকেও অভিষেক বিজেপিকে বহিরাগত আখ্যা দিযে বাঙালী অস্মিতা উস্কে দিতে চেয়েছেন  বারবার। বিজেপির শ্লোগান বাংলা শ্লোগান নিযে কটাক্ষও করতেও দেখা যায় তাঁকে। এদিনই অভিষেকের হাত দিয়ে ভোট ময়দানে তণমূলের নতুন শ্লোগান ‘বাংলা নিজের মেয়েকেই চায়’-এর আত্মপ্রকাশও হয়েছে নাগরাকাটা থেকে।

অভিষেকের কথায়, একমাত্র মহিলা মুখ্যমন্ত্রী যাঁর বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী,  স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী থেকে শুরু করে ১০ টি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী নেমেছেন। তার কটাক্ষ, ‘বাংলা পড়তে জানে না, লিখতে জানে না, কোথায় নাগরাকাটা,  কোথায় ফালাকাটা কিছু জানে না এরা আবার গড়বে সোনার বাংলা! যদি ক্ষমতা থাকে তবে সোনার ভারত গড়তে পারছো না কেন বাবু?  সোনার গুজরাট, সোনার ত্রিপুরা, সোনার অসম, সোনার হরিযানা, সোনার উত্তর প্রদেশ হয়নি কেন?  যারা মা দূর্গাকে অপমান করে, সেই হাথরস,  উন্নাও এর গণধর্ষনের নায়করা আবার সোনার বাংলা গড়ার কথা বলে।’ অভিষেকের তোপ, কিসের সোনার বাংলা? দিলীপ ঘোষ গরুর দুধ থেকে যে সোনা বের করবে সেই সোনার বাংলা? আমরা জয় বাংলা বললে ওঁদের গাত্রদাহ। সোনার বাংলা তবে কোথাকার শ্লোগান?  তুমি সোনার বাংলা বললে দেশপ্রেমী। আমি জয বাংলা বললে বাংলাদেশী?  আগামী দিনে ওঁদের মুখ থেকে জয় হিন্দও বের করাবো। জয় বাংলাও বের করাবো।’

- Advertisement -