জেলা শাসক ও পুলিশের দ্বারস্থ মুরারইয়ের নির্যাতিতা মহিলা

116

সিউড়ি: লক্ষ্মী ভাণ্ডারের ফর্ম জমা দিয়ে বাড়ি ফেরার পথে এক গৃহবধূর চুল কেটে নেওয়ার অভিযোগ উঠল দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। পুলিশ এই ঘটনায় এক মহিলাকে গ্রেপ্তার করলেও বাকিরা এখনও অধরা। ঘটনার নায্য বিচারের দাবিতে বীরভূমের জেলা শাসক ও পুলিশ সুপারের দ্বারস্থ হন ওই নির্যাতিতা।

ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের নলহাটি শহরের সিংহবাহিনী রাস্তায়। নির্যাতিতা মহিলার বাপের বাড়ি নলহাটি শহরে। বিয়ে হয়েছে মুরারইয়ে। বৃহস্পতিবার নলহাটি বাপের বাড়ি আসেন ওই মহিলা। এরপরেই তিনি লক্ষ্মী ভাণ্ডারের ফর্ম ফিলাপ করতে যান তিনি। তাঁর অভিযোগ, বাড়ি ফেরার সময় তাঁকে কয়েকজন অনুসরণ করতে শুরু করে। সেই সময় দুজন মহিলা ও দুজন পুরুষ তাঁকে ধরে টানা হেঁচড়া শুরু করে। তারপর শারীরিক অত্যাচার চালায়। মারধরের পাশাপাশি চুল কেটে নেওয়া হয়। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ওই নির্যাতিতা নলহাটি থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ সাইরা বিবি নামে এক মহিলাকে গ্রেপ্তার করে। কিন্তু মূল অভিযুক্তদের এখনও না ধরায় শুক্রবার ওই মহিলা বীরভূম জেলা পুলিশ সুপারের দ্বারস্থ হন।

- Advertisement -

নির্যাতিতার দাবি, তাঁর কাছে মোটা অংকের টাকা ছিল। দুষ্কৃতীরা তা কেড়ে নিয়েছে। সেই সঙ্গে মোবাইল এবং সোনার চেন কেড়ে নিয়েছে। এমনকি তাঁকে প্রাণে মেরে ফেলারও চেষ্টা করেছিল বলে অভিযোগ। জেলা পুলিশ সুপার নগেন্দ্রনাথ ত্রিপাঠি বলেন, ‘এখনও পর্যন্ত একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকিদেরও ধরা হবে।’