ডাম্পারের ধাক্কায় মৃত্যু দুই শ্মশান যাত্রীর, জখম ২৩

236

বর্ধমান: মৃতদেহ সৎকার সেরে ট্র্যাক্টরে চড়ে গ্রামে ফেরার পথে ডাম্পারের ধাক্কায় মৃত্যু হল দুই শ্মশানযাত্রীর। জখম হয়েছেন ২৩ জন। মৃতরা হলেন কালিরাম হাঁসদা (৩০) ও অভয় বাস্কে (৩৪)। তাঁদের বাড়ি পূর্ব বর্ধমানের মেমারি থানার গোপগন্তার-১ পঞ্চায়েতের পাতরা গ্রামে।

রবিবার গভীর রাতে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে মেমারি-সাতগেছিয়া রোডের মুন্সিডাঙ্গা মোড় এলাকায়। চিকিৎসার জন্য জখম শ্মশান যাত্রীদের উদ্ধার করে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়। বর্ধমান হাসপাতাল পুলিশ মর্গে মৃত ব্যক্তিদের দেহের ময়নাতদন্ত হয়েছে। দুর্ঘটনাগ্রস্ত দুটি গাড়ি আটক করে পুলিশ দুর্ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে।

- Advertisement -

রবিবার ৬৫ বছর বয়সী শ্যামলাল বাস্কে নামে পাতরা গ্রামের এক বাসিন্দা মারা যান। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, গ্রামের লোকজন দুটি ট্র্যাক্টরে চড়ে মেমারির দখলপুর শ্মশান ঘাটে তাঁর দেহ সৎকার করতে যান। গভীর রাতে ট্র্যাক্টরে চড়ে তাঁরা নিজেদের গ্রামে ফিরছিলেন। পথে মুন্সিডাঙ্গা মোড়ে পিছন দিক থেকে আসা একটি ডাম্পার শ্মশান যাত্রীবাহী একটি ট্র্যাক্টরের পিছনে সজোরে ধাক্কা মারে।

সেই ধাক্কায় ট্রলি সমেত ট্রাক্টরটি উল্টে গেলে ট্র্যাক্টরের ট্রলিতে চড়ে থাকা ২৩ জন ও ট্র্যাক্টর চালক জখম হন। খবর পেয়ে মেমারি থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে তাঁদের উদ্ধার করে প্রথমে মেমারি হাসপাতালে পাঠায়। আঘাত গুরুতর থাকায় তাঁদের কয়েকজনকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসাতালে পাঠানো হয়। বাকি ১২ জনকে পাঠানো হয় বর্ধমান হাসপাতালের সুপার স্পেশালিটি বিভাগ অনাময় হাসপাতালের ট্রমা কেয়ায় সেন্টারে। সেখানেই পরে মারা যান কালিরাম হাঁসদা ও অভয় বাস্কে।