রাস্তা বেহালের কারণে দুর্ঘটনা বাড়ছে তুফানগঞ্জে

362

তুফানগঞ্জ: শহরের রানিং বুলেটস ক্লাব মোড়ের পর একই চিত্র ধরা পড়ল তুফানগঞ্জ শহরের ৭ ওয়ার্ডের বিএসএনএল অফিস মোড় থেকে পুলিশের সিআই অফিসের মোড় পর্যন্ত রাস্তায়। ব্যস্ততম রাস্তার মধ্যে তৈরি হয়েছে বেশ কয়েকটি বড় বড় গর্ত। সেই গর্তে বৃষ্টির নোংরা জল জমে একের পর এক পথ দুর্ঘটনা ঘটছে। কখনও কখনও ভাঙা রাস্তার কারণে টোটো উল্টে যাচ্ছে। আবার কখনও সাইকেল নিয়ে মানুষজন দুর্ঘটনার কবলে আহত হচ্ছেন । অবিলম্বে ভগ্নদশা গ্রস্ত রাস্তাটি মেরামতের দাবি তুলেছেন স্থানীয় মানুষজন থেকে পথ চলতি সাধারণ মানুষ। তুফানগঞ্জ পুরসভার পক্ষ থেকে বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

তুফানগঞ্জ শহরের ৭ ওয়ার্ডের পুলিশের সার্কেল ইন্সপেক্টরের অফিস মোড় থেকে ৩১ জাতীয় সড়কের পাশে থাকা বিএসএনএল অফিস মোড় পর্যন্ত রাস্তাটি দীর্ঘ পাঁচ, ছয় মাস ধরে ভাঙা। রাস্তায় তৈরি হয়েছে বড় বড় বেশ কয়েকটি গর্ত। ওই রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়ছেন। তুফানগঞ্জ শহরের রানিং বুলেটস ক্লাব মোড়ের রাস্তার মতো সেখানেও উল্টে যাচ্ছে টোটো। অথচ বেহাল রাস্তাটি সংস্কারের কোনো উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে। তুফানগঞ্জ শহরের ৭ ওয়ার্ডের বাসিন্দা পঙ্কজ ভাদুড়ী সম্প্রতি সাইকেলে যাতায়াতের সময় দুর্ঘটনায় পড়ে গিয়ে তার ডান হাত ভেঙে যায়। প্রায় মাস খানেক আগে টোটোতে চেপে তুফানগঞ্জ মহকুমা ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক নিত্যেন্দ্র চন্দ্র দে ও তুফানগঞ্জ মহকুমা ব্যবসায়ী সমিতির কোষাধ্যক্ষ মানিক চান ফলো দিয়া তুফানগঞ্জ পুরসভার প্রশাসক মন্ডলীর চেয়ারম্যানের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। রাস্তার বরহালের কারণে টোটোটি উল্টে যায়। এতে জখম হয়েছিলেন তারা। নিত্যেন্দ্র বাবু আবার তুফানগঞ্জ পুরসভার ৪ ওয়ার্ডের কো-অর্ডিনেটর। তিনি বলেন, রাস্তাটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। অবিলম্বে মেরামত করা দরকার। স্থানীয় বাসিন্দা বাবলু রহমান বলেন, রাস্তাটি ভাঙা থাকায় মাঝে মধ্যেই দুর্ঘটনা ঘটছে। টোটো উল্টে যাচ্ছে। মানুষজন দুর্ঘটনার কবলে পড়ছেন। দুর্ঘটনাগ্রস্তদের আমরাই প্রাথমিক চিকিৎসা করে দিচ্ছি। তিনি আরও বলেন, আমরা আশেপাশের লোকজন মিলে টাকা খরচ করে রাস্তার গর্তে ভরাট করে ছিলাম। কিন্তু তাতেও দুর্ঘটনার ঘটনা কমছে না। টোটো চালক চন্দন দাস বলেন,ভাঙা রাস্তার গর্তে বৃষ্টির নোংরা জল জমে থাকায় টোটো নিয়ে চলাচলের সময়ে আন্দাজ করা মুশকিল হয়ে পড়েছে। এছাড়াও তুফানগঞ্জ শহরে প্রবেশের জন্য এই রাস্তাটি আমাদের ব্যবহার করতে হয়। কিন্তু রাস্তাটি এতটাই বেহাল যে, এতে টোটোর ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। খানাখন্দে ভরা রাস্তাটির সংস্কারের দাবি জানান তিনি।

- Advertisement -

বেহাল রাস্তা নিয়ে সরব হয়েছে বিরোধী রাজনৈতিক দল গুলোও। বিজেপির জেলা সহ সভাপতি পুষ্পেন সরকার বলেন, তৃণমূল নেতারা আখেরে নিজেদের কথাই ভাবেন। তাই সাধারণ মানুষ সুস্থ নাগরিক পরিষেবা পাচ্ছেন না। রাস্তাটি অবিলম্বে সংস্কার দরকার। না হলে আগামীদিনে বৃহত্তর আন্দোলনে নামার হুমকি দেন তিনি।

সিপিএমের রাজ্য কমিটির সদস্য তমসের আলী বলেন, তৃণমূল জামানায় মানুষজন ন্যূনতম নাগরিক পরিষেবা পাচ্ছেন না। অথচ করের বোঝা বয়ে বেড়াতে হচ্ছে সাধারণ মানুষজনকে। রাস্তাটি দ্রুত সংস্কার করা না হলে আগামীদিনে আন্দোলনে নামা হবে। তুফানগঞ্জ পুরসভার প্রশাসক মন্ডলীর চেয়ারম্যান অনন্ত কুমার বর্মা বলেন, ভাঙা রাস্তা গুলো সংস্কারের জন্য টেন্ডার ডাকা হয়েছে। ২১ সেপ্টেম্বরের পর তা খোলা হবে। তবে পুজোর আগেই রাস্তা গুলো চলাচল যোগ্য করে তোলা হবে বলে অনন্ত বাবু জানান।