তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষে হেনস্তার শিকার অভিনেত্রী শুভশ্রীর বাবা

109

বর্ধমান: রাজ্য সরকারের নির্দেশ মেনে মঙ্গলবার থেকে ফের স্কুল কলেজ চালু হতে চলেছে। তার ঠিক আগের দিন স্কুলে স্যানিটাইজার টানেল বসানোকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে আহত হল চার তৃণমূল কর্মী। সোমবার ঘটনাটি ঘটেছে শহর বর্ধমানের ৪ নম্বর ওয়ার্ডে। এদিনের সংঘর্ষের ঘটনার সময়ে টলিউডের নায়িকা শুভ্রশ্রী গাঙ্গুলির বাবা তথা বিধায়ক ও প্র‍যোজক রাজ চক্রবর্তীর শ্বশুর দেবপ্রসাদ গাঙ্গুলিকেও হেনস্তার অভিযোগ উঠেছে বর্ধমান পৌরসভার প্রাক্তন কাউন্সিলার মহম্মদ আলি ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে।

পড়ুয়াদের স্বার্থে বর্ধমান শহরের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের দুবরাজদিঘি হাইস্কুল ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের রেলওয়ে বিদ্যাপীঠ স্কুলে স্যানিটাইজার টানেল দেবার ব্যাপারে মনস্থির করেন দেবপ্রসাদ গাঙ্গুলির শ্যালিকা অনাবাসী ভারতীয় অনিতা গাটকারি। স্কুল এই বিষয়ে সম্মতি দেবে কিনা তা জানতে দুই স্কুলের প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে যোগাযোগ করেন দেবপ্রসাদবাবু। দুই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকরা অনুমতি দেওয়ায় এদিন সকালে শ্যালিকা ও কয়েকজনকে  সঙ্গে নিয়ে দেবপ্রসাদবাবু দুবরাজদিঘি হাইস্কুলে স্যানিটাইজার টানেল লাগাতে যান।

- Advertisement -

দেবপ্রসাদ বাবুর অভিযোগ, তাঁরা দুবরাজদিঘি হাইস্কুলে স্যানিটাইজার টানেল লাগাতে গেলে প্রাক্তন কাউন্সিলার মহম্মদ আলি ও তার ভাইপো তথা তৃণমূল কংগ্রেসের যুবনেতা নুরুল আলম তাঁদের বাধা দেয়। ম্যানেজিং কমিটির অনুমতি না নিয়ে কারো ব্যক্তিগত নামে স্যানিটাইজার টানেল স্কুলে লাগানো যাবে না বলে তাঁরা আপত্তি তোলেন। এসব নিয়ে বাগবিতণ্ডা চলার সময়ই মহম্মদ আলি ও নুরুল আলমের নেতৃত্বে একদল তৃণমূল কর্মী তাঁদের উপর চড়াও হয়। হাতে বন্দুক, লাঠি ও রড প্রভৃতি নিয়ে তাঁদের উপর আক্রমণ চালানো হয় বলে অভিযোগ করেছেন দেবপ্রসাদবাবু। তিনি বলেন, ‘তাঁর সঙ্গে থাকা শেখ হায়দার আলি, শেখ খোকন, শশীরাম ও গোবিন্দা মাল নামে চার তৃণমূল কর্মী মারধরে আহত হয়েছে। স্যানিটাইজার টানেলটিও ক্ষতিগ্রস্ত করা হয়।’ দলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে ঘটনার কথা জানিয়েছেন বলে দাবি করেছেন দেবপ্রসাদবাবু।

যদিও মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করে নুরুল আলম জানিয়েছেন, দেবপ্রসাদবাবু কোনও অনুমতি ছাড়া ব্যক্তিগত একজনের নামে স্যানিটাইজার টানেল লাগাতে এসেছিলেন। কোনও সরকারি স্কুলে কোনও কাজ করাতে  গেলে ম্যানেজিং কমিটির অনুমতি নেওয়ার প্রয়োজন হয়। উনি তা না করে গায়ের জোরে এলাকায় নিজের কর্তৃত্ব ফলাতে এসেছিলেন। তাই তাকে বাধা দেওয়া হয়েছে। ম্যানেজিং কমিটিতে আলোচনা হবার পর স্যানিটাইজার টানেল লাগানোর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে জানিয়েছেন স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য বলেও দাবি করে নুরুল আলম।

দুবরাজদিঘী হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক নবকুমার মালিক জানিয়েছেন, দেবপ্রসাদ বাবু তাঁর কাছে স্যানিটাইজার টানেল লাগানোর জন্য লিখিত আবেদন করেছিলেন। ছাত্রছাত্রীদের স্বার্থে তিনি ওনাকে এটি করতে বলেছিলেন। তবে স্যানিটাইজার টানেল বসানো নিয়ে এদিন যা ঘটল সেটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক বলে প্রধান শিক্ষক মন্তব্য করেছেন। রাজ্য তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র দেবু টুডু বলেন, কী হয়েছে জানি না। খোঁজ নিয়ে দেখতে হবে।