‘চিন হল বিষাক্ত সাপ, তাইওয়ানের সঙ্গে সম্পর্ক জুড়ুন’: অধীর

650
ফাইল ছবি।

নয়াদিল্লি: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ‘বেশি দেরি না করে’ তাইওয়ানের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের জন্য অনুরোধ করলেন কংগ্রেস নেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী। পাশাপাশি চিনকে বিষাক্ত সাপের সঙ্গেও তুলনা করেন তিনি। মঙ্গলবার অধীরবাবুর এই টুইট ঘিরে শুরু হয় বিতর্ক। পরে কংগ্রেস রাজ্যসভার সাংসদ আনন্দ শর্মা বলেন, চিন সম্পর্কে অধীরবাবুর মতামত তাঁর নিজস্ব এবং সেখানে দলের কোনও প্রতিফলন নেই। কংগ্রেস দল, ভারত ও চিনের মধ্যে বিশেষ অংশীদারিত্বকে স্বীকৃতি এবং মূল্য দেয় বলে জানান তিনি। আনন্দ শর্মা টুইট করে লিখেছেন, ভারত এবং চীন দুটি প্রাচীন সভ্যতা এবং বিশ্বের বৃহত্তর অর্থনীতি হিসাবে উভয় দেশ একবিংশ শতাব্দীতে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখে।

কোভিড মহামারীর মধ্যে তাইওয়ান ভারতে এক মিলিয়ন ফেস মাস্ক দান করার পরে চিন সম্পর্কে চৌধুরীর এমন বক্তব্য প্রকাশ্যে এল। এদিন টুইট করে তিনি জানান, ‘সাবধান হও, ভারতীয় সেনা জানে কীভাবে আপনাদের মতো বিষাক্ত সাপকে সায়েস্তা করতে হয়। পুরো বিশ্ব দেখছে হলুদ সম্প্রসারণবাদীর নকশা।’ তবে, বহরমপুরের সাংসদ এর পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিতর্কের মুখোমুখি হওয়ার পরই টুইটটি মুছে ফেলেন। উল্লেখ্য, চিন তাইওয়ানকে নিজেদের এলাকা বলেই মানে। চিন তাইওয়ানকে সমস্ত আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলির থেকে আলদা করার দাবিও তুলেছে।

- Advertisement -

আরেকদিকে, তাইওয়ান নিজেকে একটি আলাদা দেশ বলেই মানে। ১৯৪৯ সালে চিন থেকে পালিয়ে প্রচুর মানুষ তাইওয়ানে চলে গেছিলেন। এই প্রথম নয় যখন চৌধুরীর সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট বা মন্তব্যগুলি শিরোনাম করেছে। সহকর্মী ও প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরমের উপর বিভ্রান্তিকর টুইটের জন্য সম্প্রতি তিনি আলোচনায় ছিলেন। তিনি সংসদে ৩৭০ অনুচ্ছেদ নিয়ে বিতর্কিত বক্তব্যও দিয়েছিলেন।