শাক সেদ্ধ খেয়ে দিন কাটানো পরিবারের পাশে প্রশাসন

219

সামসী: স্বামীর মৃত্যুর পর মেয়েকে নিয়ে কচুশাক আর মুড়ি খেয়ে দিন কাটাচ্ছিলেন চাঁচল ২ ব্লকের ভাকরি গ্রাম পঞ্চায়েতের রসুলপুর গ্রামের বাসিন্দা ভানু প্রামাণিক। ভানুদেবীর স্বামী দীপু প্রামাণিক লোকের বাড়ি বাড়ি ঘুরে ক্ষৌরকর্ম করে সংসার চালাতেন। তাঁর মৃত্যুর পর একমাত্র মেয়ে ইতি প্রামাণিককে নিয়ে অথৈ জলে পড়েন ভানুদেবী। একে সংসারে অভাব তার উপর তিনি আংশিক পক্ষাঘাতগ্রস্ত। ফলে কোনও রকমে শাক সেদ্ধ আর মুড়ি খেয়েই দিন কাটছিল মা-মেয়ের। উত্তরবঙ্গ সংবাদে এই খবর প্রকাশিত হতেই নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। বিডিও দিব্যজোতি দাসের নির্দেশে জয়েন্ট বিডিও শ্যামল দাস সহ কয়েকজন আধিকারিক এদিন প্রয়োজনীয় ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে হাজির হন ভানু প্রামাণিকের বাড়িতে। তাঁদের হাতে পর্যাপ্ত ত্রাণ সামগ্রী তুলে দিয়েছেন প্রশাসনিক আধিকারিকরা। এর মধ্যে রয়েছে চাল, ডাল, তেল, আলু, সাবান, লবণ, কাপড়, ত্রিপলের মতো প্রয়োজনীয় সামগ্রী।

বিডিও জানান, ওই মহিলাকে দিয়ে জাতীয় পরিবার সহায়তা এবং স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের ফর্ম পূরণ করিয়ে নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি বিধবাভাতা পাইয়ে দিতেও যথাযথ উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। পরিবারটিকে বাংলা আবাস যোজনা প্রকল্পে একটি পাকা ঘরেরও আশ্বাস দিয়েছেন বিডিও। প্রশাসন এভাবে পাশে দাঁড়ানোয় খুশি ভানু প্রামাণিক। প্রশাসনের পাশাপাশি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন উত্তরবঙ্গ সংবাদকেও।

- Advertisement -