আফ্রিকান ভাইরাস ভুটানে, জয়গাঁয় সতর্কতা জারি

129

সমীর দাস, জয়গাঁ : দেশজুড়ে করোনা সংক্রমণের বাড়বাড়ন্ত। তার সঙ্গে মিউকরমাইকোসিসের প্রভাব। সব মিলিয়ে মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা দীর্ঘদিন ধরে ব্যাহত। এবার ভুটানে আফ্রিকান সোয়াইন ফিভার ভাইরাসের সন্ধান মেলায় ভুটান সীমান্ত শহর জয়গাঁয় আতঙ্কের পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে। সম্প্রতি ভুটান প্রশাসন ফুন্টশোলিং শহরে মারণ রোগ আফ্রিকান সোয়াইন ফিভার ভাইরাসের সন্ধান পেয়েছে। এ বিষয়ে ভুটান প্রশাসন আলিপুরদুয়ার জেলা প্রশাসনকে লিখিত আকারে জানিয়ে দিয়েছে। জয়গাঁতে যাতে কোনওভাবেই এই ভাইরাসের সংক্রমণ না ঘটে, তার জন্য তড়িঘড়ি পদক্ষেপ করা শুরু হয়েছে।

এই ভাইরাস মানবদেহে তেমন কোনও ক্ষতি করে না বলেই প্রাথমিকভাবে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন। ওই ভাইরাস মূলত শূকরের দেহে বিরাট প্রভাব ফেলে। এমনকি সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়লে শূকরের মড়ক শুরু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে। সেখান থেকে মানবশরীরে এই ভাইরাস ছড়াবে কি না এ বিষয়ে এখনও পরিষ্কার কিছু জানা যায়নি।

- Advertisement -

জয়গাঁ শহর ও সংলগ্ন এলাকায় অনেকেই বাড়িতে শূকর পালন করে থাকেন। সে কারণেই বৃহস্পতিবার জয়গাঁ উন্নয়ন পর্ষদ (জিডিএ) ভবনে এদিন জরুরি বৈঠক করেন অ্যাসিস্ট্যান্ট এগজিকিউটিভ অফিসার তথা ডেপুটি কালেক্টর ভূষণ শেরপা। ওই বৈঠকে কালচিনি ব্লক প্রাণীসম্পদ দপ্তরের আধিকারিক ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বন দপ্তরের আধিকারিক, পুলিশ আধিকারিক ও গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধানরা।

এ বিষয়ে জিডিএ আধিকারিক ভূষণ শেরপা বলেন, ভুটান প্রশাসনের তরফে জেলা প্রশাসনকে ওই ভাইরাস সম্পর্কে অবগত করা হয়েছে। জয়গাঁ ও সংলগ্ন এলাকায় অবিলম্বে যাঁরা শূকর পালন করছেন, তাঁদের সতর্ক করা হচ্ছে। শূকরকে বাড়ির ভেতরে পরিষ্কার জায়গায় খামার বানিয়ে পালন করতে বলা হবে। বাড়ির বাইরে কোনও মতেই শূকর পালন করা চলবে না। এছাড়াও শূকরকে টিকা দেওয়ার বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। আপাতত শূকরের মাংস বিক্রি সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হচ্ছে। এছাড়াও বন দপ্তরকে জংলি শূকরের গতিবিধি নজরে রাখতে বলা হয়েছে। যদিও এ বিষয়ে কোনও মন্তব্য করবেন না বলে জানিয়েছেন কালচিনির ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ সুভাষ কর্মকার। তিনি বলেন, এই ভাইরাসের বিষয়ে যা বলার জেলা প্রশাসন বলবে। মানবদেহে এই ভাইরাসের কী ধরনের প্রভাব পড়তে পারে সে বিষয়ে তিনি কোনও মন্তব্য করতে চাননি। বলেন, আমি জেলা প্রশাসনের মুখপাত্র না। তাই কিছু বলব না।

আলিপুরদুয়ার জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ গিরীশচন্দ্র বেরা বলেন, শূকরের থেকে এই ভাইরাস মানবদেহে ছড়িয়ে পড়তে পারে। তাই জনবহুল এলাকায় শূকর রাখা উচিত নয়। শূকরের থেকে যতটা সম্ভব দূরত্ব বজায় রাখার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। এছাড়াও বিষয়টি অ্যানিমাল রিসোর্স ডেভেলপমেন্ট ডিপার্টমেন্ট-কে জানানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক।