১৬ দিন পর স্বাভাবিক হতে চলেছে বীরপাড়ার জনজীবন

651

বীরপাড়া: টানা ১৬ দিন দোকানপাট, বাজার বন্ধ থাকার পর ১৭ দিনের মাথায় বীরপাড়ার জনজীবন স্বাভাবিক হতে চলেছে। শনিবার রাত আটটা নাগাদ এই মর্মে মাদারিহাট বীরপাড়া ব্লক প্রশাসনের কাছে নির্দেশনামা পাঠান আলিপুরদুয়ারের জেলাশাসক সুরেন্দ্রকুমার মীনা। মাদারিহাটের বিডিও শ্যারণ তামাং বলেন, ‘নির্দেশনামা মিলেছে। রবিবার থেকে বীরপাড়ার অনেক এলাকায় স্বাভাবিক কাজকর্ম হবে। তবে যে সব জায়গায় সম্প্রতি করোনায় সংক্রামিত হওয়ার রিপোর্ট মিলেছে, সেগুলি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত কনটেনমেন্ট জোন হিসেবে থাকবে। তবে, বীরপাড়ার বাজার, দোকানপাট রবিবার থেকে খুলবে।‘

অবশ্য, ধৈর্য্যের বাঁধ ভেঙে যাওয়ায় শনিবার সকাল থেকেই দোকানপাট খুলতে শুরু করেছিলেন বীরপাড়ার ব্যবসায়ীদের অনেকেই। এদিকে, দোকানপাট, বাজার টানা বন্ধ থাকায় চরম আর্থিক সংকটের মুখে পড়েছেন বীরপাড়ার ব্যবসায়ীরা। বীরপাড়া ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের ২৩টি পার্টকেই কনটেনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করার পর ১৬ দিন পেরিয়ে গিয়েছে। শনিবার সকাল থেকে  বীরপাড়ার অনেক ব্যবসায়ীই দোকান খুলে বসেন। বসে সবজি বাজারও। তাঁদের সাফ কথা, ‘করোনাকে নিয়ে বেঁচে থাকতে রাজি আছি। কিন্তু না খেয়ে মরতে রাজি নই।’

- Advertisement -

স্থানীয়দের অভিযোগ, টানা বন্ধে তাঁদের জীবনযাপন দু:সহ হয়ে উঠেছে। আবার ব্যবসায়ী, বিশেষ করে দোকানদারদের আর্থিক সংকট চরম আকার ধারণ করেছে বলে অভিযোগ। বীরপাড়া ব্যবসায়ী সমিতি সূত্রের খবর, অনেক দোকানদার ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে ব্যবসা করেন। কিন্তু টানা দোকানপাট বন্ধ রাখার ফলে তাঁরা ব্যাংকের ঋণের কিস্তি দিতে পারছেন না। স্থানীয়রা জানান, তাঁরা আশা করেছিলেন, কনটেনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণার ১৪ দিন পর দোকানপাট খোলার নির্দেশ মিলবে। কিন্তু শুক্রবার রাত পর্যন্ত এ ধরনের কোনও নির্দেশ মেলেনি। উল্লেখ্য, এর আগে ২৩ জুলাই থেকে ৭ দিন লকডাউন চলছিল বীরপাড়ায়। করোনা সংক্রামিতের সংখ্যা ক্রমেই বেড়ে যাওয়ায় ৭ অগাস্ট থেকে বীরপাড়া ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের ২৩টি পার্টকেই কনটেনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

মাদারিহাটের বিডিও শ্যারণ তামাং শনিবার রাত সাড়ে আটটা নাগাদ জানান, রবিবার থেকে বীরপাড়ার কিছু নির্দিষ্ট এলাকা ছাড়া বাকি অংশে স্বাভাবিক কাজকর্ম চলবে।