ভোট ঘোষণার পরে সবুজসাথীর সাইকেল বিলি করে বিতর্কে স্কুল

108

কালিয়াগঞ্জ: সাইকেল বন্টনে স্থগিতাদেশ দেওয়ার পরেও তা বিলি করে বিপাকে কালিয়াগঞ্জের স্কুল। নির্বাচন কমিশনের তরফে আসন্ন বিধানসভা ভোটের নির্ঘন্ট প্রকাশের দিনই কালিয়াগঞ্জের স্থানীয় ব্লক প্রশাসনের তরফে স্থানীয় কিষান মান্ডি থেকে মোট ৪১৯টি সবুজসাথী সাইকেল ব্লক ও শহরের তিনটি উচ্চ বিদ্যালয়ে স্থানান্তরিত করা হয়। এই সাইকেল বিলি বন্ধ রাখতে স্থানীয় বিডিও প্রসূন কুমার ধারাকে লিখিত আর্জি জানান কংগ্রেস বাম জোটের নেতারা। প্রশাসনের তরফে সাময়িক ভাবে সাইকেল বন্টনে স্থগিতের নির্দেশ দেওয়া হয়। তবে, মিলনময়ী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের কিছু সংখ্যক ছাত্রী সাইকেল পেয়েছেন এদিন। তা নিয়েই সমালোচনার ঝড় ওঠে বিভিন্ন মহলে।

স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষিকা শিখা সিংহ বলেন, ‘বেলা দেড়টা থেকে দুটোর সময়ের মধ্যে আমাদের কাছে সাইকেল বিলি বন্টন স্থগিতের নির্দেশ আসে। ততক্ষণে, পঞ্চাশ শতাংশ সাইকেল পূর্ব নির্ধারিত নোটিশের ভিত্তিতে ছাত্রীরা এসে নিয়ে যায়।’ ঘটনাটি নিয়ে বিজেপির জেলা যুবমোর্চার সভাপতি গৌতম বিশ্বাস বলেন, ‘আগামীদিনে তৃণমূল পরিচালিত স্কুল ম্যানিজিং কমিটির বিরুদ্ধে পূর্ণাঙ্গ তদন্তের দাবি জানানো হবে।’ অন্যদিকে, কংগ্রেসের বিদায়ী কাউন্সিলর মঞ্জুরি দাম দত্ত জানান, নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণার পর কখনই সাইকেল বিলি উচিত হয়নি। এই বিষয়ে সবুজসাথী প্রকল্পের দায়িত্বে থাকা ব্লক আধিকারিক খগেশ্বর সিংহ বলেন, ‘ব্লক প্রশাসনের তরফ থেকে বন্টনের কোন নির্দেশ তিনটি স্কুলকেই দেওয়া হয়নি।মিলনময়ী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় থেকে সাইকেল বিলির খবর পেয়ে তৎক্ষনাৎ ওই স্কুলকে সাইকেল বন্টন স্থগিত রাখতে বলা হয়।’ কালিয়াগঞ্জ বিডিও অফিসের জয়েন্ট বিডিও ডুমিত লেপচা বলেন, ‘সংশ্লিষ্ট ব্লক আধিকারিক নিজেই প্রত্যেকটি স্কুলে গিয়ে সাইকেল বন্টন স্থগিতের নির্দেশ দিয়ে এসেছেন। এরপরেও কোন স্কুল সাইকেল বন্টন করে থাকলেও আমাদের কিছু করার নেই।‘

- Advertisement -