‘ভোটের দিন ভয়ংকর খেলব’, জনসভার মঞ্চ থেকে সুর চড়ালেন অনুব্রত

100

বর্ধমান: অষ্টম দফা অর্থাৎ আগামী ২৯ এপ্রিল বীরভূম জেলার সব আসনে নির্বাচন। তার প্রাক্কালে মঙ্গলবার পূর্ব বর্ধমানের ভাতারে তৃণমূলের নির্বাচনি জনসভার মঞ্চ থেকে সুর চড়িয়ে অনুব্রত মণ্ডল বলেন, ‘ভোটের দিন ভয়ংকর খেলব।’ প্রকাশ্য জনসভা থেকে বীরভূম জেলা তৃণমূলের সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের এই মন্তব্যে শোরগোল পড়ে গিয়েছে রাজনৈতিক মহলে। যদিও ভাতারের বিজেপি প্রার্থী মহেন্দ্রনাথ কোঙার অনুব্রত মণ্ডলের এই হুংকারকে ‘ফাঁকা আওয়াজ’ বলে কটাক্ষ করেছেন।

ভাতার বিধানসভা আসনে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী মানগোবিন্দ অধিকারীর সমর্থনে এদিন নির্বাচনি জনসভা আয়োজিত হয় ভাতার হাই স্কুল ময়দানে। জনসভার প্রধান ছিলেন অনুব্রত মণ্ডল। ভিড়ে ঠাসা জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার ও নরেন্দ্র মোদির কড়া সমালোচনা করার পাশাপাশি অনুব্রত মণ্ডল বলেন, ‘হ্যাঁ খেলা হবে। একশো বার খেলা হবে। এই মাটিতেই খেলব। বারবার খেলব। ভোটের পরেও খোলব। ভোটের দিন ভয়ংকর খেলব।’ তাঁর কথায়, ’বিজেপি খেলা জানে না। ভোটের দিন তৃণমূল খেলবে মাঠের মধ্যে। ওঁরা(বিজেপি) থাকবে মাঠের বাইরে। ওরা শুধু হিন্দু মুসলিমে বিভেদ সৃষ্টি করে। মমতাকে কটু কথা বলছে। অপমান করছে। কেউ আবার মমতাকে বেগম বলছে। বাংলার মানুষ এসবের জবাব দেবে ভোটে।

- Advertisement -

এদিনের জনসভার মঞ্চ থেকে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের কড়া সমালোচনা করে অনুব্রত মণ্ডল বলেন, এখানে ‘এনআরসি’ করতে দেব না। তার জন্য আন্দোলন করব। মৃত্যু বরণ করব। তবু ‘এনআরসি’ করতে দেব না। অন্যদিকে, নাম না করে তিনি শুভেন্দু অধিকারীকে কটাক্ষ করে বলেন, ’আমি নেতা নই, আমি একজন তৃণমূল কর্মী। আমি নেতা হলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ছেড়ে পালিয়ে যেতাম। ঠকিয়ে দিয়ে চলে যেতাম। বেগম বলতাম। কটু কথা বলতাম।’

জনসভার মঞ্চ থেকেই বীরভূমের দুবরাজপুরের খুনের ঘটনা প্রসঙ্গ তুলে ধরে অনুব্রত মণ্ডল দাবি করেন, যিনি খুন হয়েছেন তিনি বিজেপি করতেন। তাঁকে বিজেপিরই একজন কর্মী খুন করেছে। বিজেপি এই ঘটনা নিয়ে নোংরামি করছে।