ফের জমি আন্দোলনের ছায়া নকশালবাড়িতে

108

মহম্মদ হাসিম, নকশালবাড়ি : মনে আছে ছয়ের দশকের সেই আগুনঝরা দিনগুলির কথা? লাঙল যার জমি তার স্লোগান তুলে আন্দোলনে নেমেছিলেন নকশালবাড়ির কৃষকরা। এবার আবার চাষের জমির অধিকার নিয়ে আন্দোলনের মেঘ ঘনাচ্ছে নকশালবাড়িতে। ভারত-নেপাল সীমান্তে, মেচি নদীর তীরে সুরজবর মৌজায় জমি অধিগ্রহণ করে গোর্খা ব্যাটালিয়নের অফিস এবং পুলিশ ট্রেনিং ক্যাম্প বানাবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এদিকে, ওই জমিতে চাষ করে সংসার চালান এলাকার হাজার দেড়েক কৃষক। সরকারি এই সিদ্ধান্তে সেই কৃষকদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। প্রয়োজনে ব্যাপক আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন তাঁরা।

আগে এখানে আস্ত একটা গ্রাম ছিল। কিন্তু ১৯৭৬ সালের মেচি নদীর বন্যায় পুরো গ্রামে জল ঢুকে যায়। ঘরবাড়ি ভেসে যায়। অন্য জায়গায় বাড়ি বানাই। জল কমে গেলে আমরা সেখানে চাষ-আবাদ শুরু করি। এতদিন ধরে আমরাই মেচি নদী লাগোয়া জমিকে উর্বর করেছি। সেখান থেকেই আমাদের সারা বছরের খোরাকি আসে। এখন শুনছি, সেই জমি সরকার আমাদের কাছে থেকে কেড়ে নেবে। অফিস হবে। তাহলে আমরা পরিবার নিয়ে কোথায় যাব? কী খাব? এই কথা বলে শূন্যদৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকলেন কিলারামের বাসিন্দা বাবুল রায়। তাঁর বয়স ৬৫ বছর। বহুবার বয়স্ক ভাতার জন্য আবেদন করেও তা মেলেনি। সংসার পালতে শেষ সম্বল সুরজবর মৌজায় বিঘা তিনেক জমি।

- Advertisement -

নিজের জমিতে কোদাল দিয়ে আল তৈরিতে ব্যস্ত ছিলেন পদম দাস। কাজ করতে করতেই বলেন, ৪৫ বছর ধরে এখানে চাষ-আবাদ করছি। এত সহজে আমরা জমি ছাড়ব না। দরকারে প্রাণ দেব, কিন্তু জমি দেব না। তিনি আরও বলেন, কৃষিজমির পাট্টার জন্য বহুবার আবেদন জানালেও লাভ হয়নি।

গোর্খা ব্যাটালিয়নের অফিস এবং পুলিশ ট্রেনিং ক্যাম্প তৈরির জন্য স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে সুরজবর মৌজায় ১০৫ একর জমি চিহ্নিত করা হয়েছে। ওই জমি যে কোনও সময় অধিগ্রহণ করা হতে পারে, সেজন্য আগে থেকেই কৃষকদের সেখানে চাষ করতে নিষেধ করা হয়েছে। অন্যান্য বছর জুন মাস নাগাদ মেচি নদীর তীরে প্রায় সাড়ে তিনশো একর জমিতে চাষ করতে ব্যস্ত থাকেন কৃষকরা। এবারও তাই। অনেকেই ধানের বীজ রোপণ করে জমিতে হালও দিতে শুরু করেছেন। কিন্তু সোমবার প্রশাসনিক আধিকারিকদের জমি অধিগ্রহণের নির্দেশে সকলের মাথায় হাত পড়েছে। এমন পরিস্থিতি বড় মণিরাম, কিলারামজোত এবং সুরজবর এলাকার প্রায় হাজার দেড়েক কৃষক তাঁদের কৃষিজমি হারানোর আশঙ্কায় ভুগছেন।

নকশালবাড়ি ব্লক ভূমি ও ভূমি সংস্কার আধিকারিক শুভঙ্কর সাহা জানান, সুরজবর মৌজায় প্রায় সাড়ে তিনশো একর সরকারি জমি রয়েছে। স্থানীয়রা দীর্ঘদিন ধরেই সেখানে বেআইনিভাবে কৃষিকাজ করে আসছেন। সেখানে আগে কোনও বসতি ছিল, এমন কোনও তথ্য আমাদের কাছে নেই। কোনও পাট্টাও তাঁদের দেওয়া হয়নি।

এদিকে স্থানীয়দের দাবি, পাট্টা চেয়ে বহুবার দরবার করেছেন তাঁরা। আর তার সুযোগ নিয়েছে স্থানীয় নেতারা। এই এলাকায় প্রায় সাড়ে পাঁচশো কৃষকের কাছ থেকে জমির পাট্টা দেওয়ার নাম করে কয়েক লক্ষ টাকা তোলা হয়েছে বলে অভিযোগ। কিলারামের মেচ বস্তির বাসিন্দা ভারতী শৈব্য জানান, স্থানীয় নেতারা পাট্টা দেওয়ার নাম করে কারও কাছ থেকে ৫০০, কারও থেকে ১০০০ টাকা করে নিয়েছে। কিন্তু আজ পর্যন্ত কেউ পাট্টা পায়নি। ওই জমি যাতে কেউ নিতে না পারে সেজন্য ইতিমধ্যে কৃষিজমি রক্ষা কমিটি তৈরি করে আন্দোলনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।