ভারতে প্রথম করোনার পরীক্ষামূলক টিকা নিলেন দিল্লির যুবক

অনলাইন ডেস্ক: করোনার থাবায় কাবু গোটা বিশ্ব। তবে ইতিমধ্যেই বিশ্বের বহু দেশ করোনা ভ্যাকসিন তৈরির চেষ্টা চালাচ্ছে। ভারতেও একাধিক সংস্থা এই দৌড়ে রয়েছে। শুক্রবার দেশে করোনার টিকা কোভ্যাক্সিনের হিউম্যান ট্রায়াল বা মানবশরীরের উপর পরীক্ষা শুরু হয়েছে। দিল্লি এইমসে ৩০ বছর বয়সী এক যুবকের দেহে কোভ্যাক্সিনের প্রথম ডোজ প্রয়োর করা হয়েছে।

এর ফলাফলের ওপর ভিত্তি করেই পরবর্তী পদক্ষেপ করা হবে। হায়দরাবাদের সংস্থা ভারত বায়োটেক কোভ্যাক্সিন তৈরি করেছে। এই পর্যায়ে ১০০ জন ব্যক্তির শরীরে কোভ্যাক্সিন প্রয়োগ করা হবে। কোভ্যাক্সিনের হিউম্যান ট্রায়ালের আগে স্বেচ্ছাসেবক বাছাই পর্ব শুরু হয়েছিল। মোট ১২ জন স্বেচ্ছাসেবককে নির্বাচিত করা হয়। নাসারন্ধ্র, শ্বাসযন্ত্র, রক্তপরীক্ষা সহ নানা পরীক্ষার পর তাঁদের মধ্যে ১০ জনকে বেছে নেওয়া হয়েছে। দু’টি ধাপে হিউম্যান ট্রায়াল হবে বলে জানা গিয়েছে।

- Advertisement -

এইমসের অধিকর্তা রণদীপ গুলেরিয়া বলেন, আমরা প্রথম ধাপে ভ্যাকসিনটি কতটা নিরাপদ তা খতিয়ে দেখব। এই বিষয়টি প্রাথমিক ভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পাশাপাশি টিকার ডোজ কতটা হবে তাও পরীক্ষা করে দেখা হবে। ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর) এবং ন্যাশনাল ইন্সস্টিটিউট অব ভাইরোলজি (এনআইভি)-র সহায়তায় ভারত বায়োটেক কোভ্যাক্সিনের তৈরি করেছে। ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অব ইন্ডিয়া অনুমোদনের পর দেশের ১২টি হাসপাতাল এর হিউম্যান ট্রায়াল শুরুর কথা রয়েছে।

এইমসের কমিউনিটি মেডিসিনের অধ্যাপক তথা প্রধান গবেষক সঞ্জয় রাই বলেন, দু’দিন আগে দিল্লির ওই বাসিন্দার শরীরে কোভ্যাক্সিন প্রয়োগ করা হয়। তিনি সুস্থ এবং স্বাভাবিক রয়েছে। তাঁর অন্য কোনও অসুস্থতাও নেই। তাঁকে ০.৫ মিলিমিটারের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রথম ডোজের কোনও ক্ষতিকারক প্রভাব ওই ব্যক্তির শরীরে এখনও পর্যন্ত দেখা যায়নি। তবে আগামী ৭ দিন তাঁর শরীরের ওপর নজর রাখা হবে।

কোভ্যাক্সিনের হিউম্যান ট্রায়ালের জন্য প্রথম ধাপে ১৮ থেকে ৫৫ বছর বয়সী স্বাস্থ্যবান ব্যক্তিদের নির্বাচিত করা হয়েছে। নির্বাচিত ব্যক্তিদের কোনও কো-মর্বিডিটি নেই। এই তালিকায় মহিলারাও রয়েছেন। প্রথম ধাপের ফল ইতিবাচক হলে দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল শুরু হবে। এই ধাপে ১২ থেকে ৬৫ বছর বয়সী ৭৫০ জন ব্যক্তির ওপর কোভ্যাক্সিন প্রয়োগ করা হবে। ১ হাজার ৮০০ জন স্বেচ্ছাসেবক হিউম্যান ট্রায়াল জন্য নাম নতিভুক্ত করেছেন।