কেন্দ্রের ডাক উপেক্ষা করে রাজ্যের মুখ্য উপদেষ্টার দায়িত্বে আলাপন

141

কলকাতা: রাজ্যের মুখ্য উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব নিতে চলেছেন আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। মঙ্গলবার তিনি দায়িত্ব নেবেন। সোমবার নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী এই ঘোষণা করেছেন। এদিনই কেন্দ্র-রাজ্য টানাপোড়েনের মাঝে মুখ্যসচিব পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন আলাপন। নতুন মুখ্যসচিব হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী। স্বরাষ্ট্র সচিব হয়েছেন বিপি গোপালিকা।

সোমবার সকালে মুখ্যসচিব ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি দেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ৫ পাতার চিঠিতে তিনি প্রাক্তন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের বদলির নির্দেশ প্রত্যাহারের আবেদন জানিয়েছিলেন। মমতার বক্তব্য, নির্দেশ জারির আগে রাজ্যের সঙ্গে কোনও আলোচনা করা হয়নি। এই সিদ্ধান্ত একতরফা ও অসাংবিধানিক। এরফলে যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো আঘাতপ্রাপ্ত হবে। মুখ্যসচিবের দিল্লিতে বদলির নির্দেশ জনস্বার্থে প্রত্যাহারের আর্জি জানান তিনি। কিন্তু নিজের অবস্থানে কড়া থাকে কেন্দ্র। সোমবার বিকেলে কেন্দ্রের তরফে চিঠিতে আলাপনকে স্পষ্ট জানানো হয়, তাঁকে মঙ্গলবার দিল্লিতে নর্থ ব্লকে কাজে যোগ দিতে হবে। তার পরপরই মুখ্যমন্ত্রী বৈঠক করে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন। তিনি বলেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকার প্রতিহিংসামূলক আচরণ করছে। করোনা পরিস্থিতিতে লড়াইয়ের জন্য আমি প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছিলাম। এমন নির্মম প্রধানমন্ত্রী আগে দেখিনি। আমি আলাপনকে ছাড়ছি না।’

- Advertisement -

গত শুক্রবার কেন্দ্রের তরফে আলাপনবাবুকে চিঠি দিয়ে তাঁকে ৩১ মে দিল্লির নর্থ ব্লকে রিপোর্ট করার কথা বলা হয়েছিল। সেই হিসেবে সোমবার অর্থাৎ আজ সকাল ১০টায় নর্থ ব্লকে হাজির হওয়ার কথা ছিল তাঁর। কিন্তু রাজ্য সরকার তাঁকে ছাড়পত্র দেয়নি। সেকারণে তিনি দিল্লি যাননি।

উল্লেখ্য, ৩১ মে অবসর নেওয়ার কথা ছিল আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলায় দক্ষ প্রশাসকের প্রয়োজনের কথা মাথায় রেখে মুখ্যমন্ত্রী তাঁর মেয়াদ বাড়াতে কেন্দ্রকে চিঠি দিয়েছিলেন। এরপর কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়, রাজ্যের আবেদন মেনে অগাস্টের শেষ পর্যন্ত মুখ্যসচিব পদে থাকবেন আলাপন। কিন্তু শুক্রবার আচমকাই কেন্দ্র চিঠি দিয়ে জানায়, মুখ্যসচিবকে ৩১ মে নর্থ ব্লকে রিপোর্ট করতে হবে। এরপরই মুখ্যসচিব ইস্যুতে কেন্দ্র-রাজ্য সংঘাত চরমে ওঠে। অবশেষে এদিন মুখ্যসচিব পদ থেকে ইস্তফা দেন আলাপন। কেন্দ্রের ডাক উপেক্ষা করে রাজ্যের মুখ্য উপদেষ্টার দায়িত্ব বেছে নিলেন তিনি।