বাংলায় পুরভোট পিছোলেও সক্রিয় সব দলই

286

স্বরূপ বিশ্বাস, কলকাতা: পুরভোট আপাতত পিছিয়ে গেলেও বসে নেই কোনও রাজনৈতিক দলই। প্রকাশ্যে মিটিং, মিছিল ও সমাবেশে না গেলেও ঘরোয়া মিটিং, আলোচনা ইত্যাদি ও পরিস্থিতি পর্যালোচনা সব দলে চলছে। আসন ভাগাভাগি নিয়ে জেলাস্তরে বামফ্রন্ট আর কংগ্রেসের মধ্যে ঘরোযা বৈঠকও চলছে। বসে নেই তণমূলও।

শাসক দলের পরামর্শদাতা প্রশান্ত কিশোরের পরামর্শে তৃণমূলের নেতা ও কর্মীদের ভোট নিযে ঘরোয়া বৈঠক চলছে। দলের খবর, পিকে বলেছেন, করোনা আতঙ্কের মধ্যেই পুরভোটের কাজ চালিয়ে যেতে হবে।

- Advertisement -

পিকের পরামর্শ, করোনা সতর্কতাকেও দলের প্রচারের হাতিয়ার করতে হবে। এতে একদিকে যেমন করোনা সতর্কতা সম্পর্কে জনগণকে সতর্ক করা যাবে। অন্যদিকে, তেমনই এটা দলের পক্ষে বড় জনসংযোগের হাতিয়ার হবে। আখেরে তা পুরভোটে দলের কাজে লাগবে। পিকের এই পরামর্শের পর দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যাযে নির্দেশে জেলায় জেলায় তৃণমূলের নেতা ও কর্মীদের এই কাজে ঝাঁপিয়ে পড়ার বার্তা পৌঁছে গিয়েছে।
বসে নেই বিজেপিও।

বুধবার দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, পুরভোট তো এখন হচ্ছে না। দলের প্রকাশ্য প্রচার, মিটিং, মিছিল, সমাবেশ আপাতত বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। তবে ঘরোয়া মিটিং, আলোচনা ইত্যাদি চলবে। পার্টি নেতা ও কর্মীদের তাই বলা হয়েছে। অবশ্যই ঘরোয়া ওইসব আলোচনায মুখ্য বিষয় হবে পুরভোট ও তার প্রস্তুতি। নেতা ও কর্মীরা নিজেদের মধ্যে এসব নিয়ে আলোচনা করবেন। ভোট প্রস্তুতির ছক কষবেন। দলের নেতা ও কর্মীদের মধ্যেই আপাতত পুরভোটের প্রস্তুতি সীমাবদ্ধ রাখতে বলা হয়েছে। আবার ভোটের পরিস্থিতি এলে প্রচার, মিটিং, মিছিল ও সমাবেশ শুরু করা হবে।

সিপিএম ও কংগ্রেস একইভাবে পুরভোটের প্রস্তুতি নিচ্ছে। জেলায় জেলায় বামফ্রন্টের সঙ্গে কংগ্রেসের আসন ভাগ বাঁটোয়ারার বৈঠক চলছে। ঘরোয়া ভাবে এই আলোচনা থেমে নেই বলে বুধবার জানালেন বামফ্রন্টের অন্যতম শরিক ফরওযার্ড ব্লকের রাজ্য সম্পাদক নরেন চট্টোপাধ্যায়। তিনি জানান, রাজ্যস্তরে আমরা সবাই এই করোনা আতঙ্কের পরিস্থিতিতে চুপচাপ আছি। কিন্তু জেলাস্তরে কংগ্রেসের সঙ্গে আসন ভাগাভাগি নিয়ে বৈঠক ও আলোচনা চলছে।