২ ঘণ্টা পেরোলেও আসেনি মাতৃযান, হাসপাতালের বাইরে সন্তান প্রসব করলেন প্রসূতি

101

বর্ধমান, ১৩ মার্চঃ প্রসূতিকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য ‘মাতৃযান’ এসে পৌছায়নি। পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালের বাইরে গাছ তলায় প্রসব হল প্রসূতির। ঘটনার জেরে শনিবার দুপুরে কাটোয়া হাসপাতাল চত্বরের ক্ষোভে ফেটে পড়েন প্রসূতির পরিবারের সদস্যরা। বিক্ষোভ সামাল দিতে পরে কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালেরই প্রসুতি বিভাগে সন্তান সহ প্রসূতিকে ভর্তি নেন কর্তৃপক্ষ। এই বিষয়ে কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত সুপার শুভ্রজিৎ দে ঘটনার সমস্ত দিক খতিয়ে দেখে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানাবেন বলে মন্তব্য করেন। পাশাপাশি, তিনি আরও বলেন, ভবিষ্যতে যাতে আর এই ধরনের ঘটনা না ঘটে, সেদিকেও নজর দেওয়া হচ্ছে।

কাটোয়া হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রসূতির নাম সেলিনা বিবি। ২৬ বছর বয়সি প্রসূতির বাড়ি কাটোয়ার করজগ্রামে। শুক্রবার রাত থেকে অসুস্থ হয়ে পড়েন ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা এই গৃহবধূ। চিকিৎসার জন্য প্রসূতিকে এদিন বেলা ১১টা নাগাদ কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে আসেন পরিবারের লোকজন। বধূর মা হামিদা বিবি বলেন, তাঁর অন্তঃসত্ত্বা মেয়ের রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। কাটোয়া হাসতালের ডাক্তারবাবুরা তাঁর মেয়েকে দেখার পরেই বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে স্থানান্তরিত করেন। কাটোয়া হাসপাতাল থেকে বলা হয় আ্যম্বুলেন্সের (মাতৃযানের) ব্যাবস্থা করা হবে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তরফে বাইরে অপেক্ষা করতে বলা হয়।

- Advertisement -

হামিদা বিবি জানান, কাটোয়া হাসপাতালের চিকিৎসকদের কথা মেনে তিনি ও পরিবারের অন্যরা প্রসূতি মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে হাসপাতাল রুমের বাইরে গাছ তলায় অপেক্ষা করছিলেন। সেখানে অ্যাম্বুলেন্সের জন্য অপেক্ষা করতে করতে প্রায় ২ ঘণ্টা পেরিয়ে যায়। কিন্তু, অ্যাম্বুলেন্স আর আসেনি। এরইমধ্যে তাঁর অন্তঃসত্ত্বা মেয়ে গাছতলাতেই প্রসব করে বসেন। প্রসুতি সেলিনার এমন অবস্থা হওয়ার জন্য তাঁর মা হামিদা বিবি সহ পরিবারের অন্যরা হাসপাতালের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ তুলেছেন।