স্বাস্থ্যসাথী কার্ড থাকা সত্বেও টাকা নেওয়ার অভিযোগ বেসরকারি হাসপাতালের বিরুদ্ধে

150

রায়গঞ্জ, ৩ অক্টোবরঃ বেসরকারি নার্সিংহোমের বিরুদ্ধে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড থাকা সত্বেও, রোগীর কাছ থেকে ৫২ হাজার টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠল। রাজ্য সরকারের এই কার্ডে চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়া সম্ভব নয় বলে, নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ রোগীর পরিবারকে সাফ জানিয়ে দিয়েছে। এই ঘটনায় রবিবার রায়গঞ্জে ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। বিষয়টি নিয়ে রোগীর পরিবারের তরফে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় বারবার বলেছেন, স্বাস্থ্যসাথী কার্ড থাকা রোগীদের ফেরানো কিংবা তাঁদের থেকে টাকা নেওয়া যাবে না। সেখানে সংশ্লিষ্ট নার্সিংহোম স্বাস্থ্যসাথী কার্ড নিতে অস্বীকার করে। স্বাস্থ্যসাথী কার্ড থাকা সত্বেও, যদি কোনও স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান চিকিৎসা করতে রাজি না হয়, সেক্ষেত্রে রাজ্য সরকারের তরফে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। তবে, নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষকে ফোন করা হলে, তারা এই ব্যাপারে মন্তব্য করতে নারাজ।

- Advertisement -

রায়গঞ্জ থানার কমলাবাড়ী ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের বাসিন্দা দেবেন তপ্নো (৭১) চলতি মাসের ১ তারিখে প্রবল শ্বাসকষ্ট নিয়ে রায়গঞ্জ শহরের ওই নার্সিংহোমে ভর্তি হন। চিকিৎসা শুরু হয়। প্রথমে নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ স্বাস্থ্যসাথী কার্ড নিয়ে চিকিৎসার কথা বলে। ওই রোগীকে সিসিইউতে ভর্তি করার পরই, তাদের বক্তব্য উলটে যায়। বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাফ কথা, এই মুহূর্তেই ১০ হাজার টাকা লাগবে। ১ তারিখ থেকে এই মুহূর্ত পর্যন্ত প্রায় ৫২ হাজার টাকা রোগীর পরিবারের তরফ থেকে দেওয়া হয়েছিল বলে অভিযোগ।

এরপর, এদিন সন্ধ্যায় আরও ৪০ হাজার টাকা চাওয়া হয়। হতদরিদ্র ওই রোগীর পরিবারের পক্ষ থেকে এই টাকা দেওয়া সম্ভব নয় বলে জানানো হয়। এই কথা জানাতেই, মুমূর্ষু রোগীর মেয়ে সোনা তপ্নোকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করা হয়েছে বলে অভিযোগ। এরপরই তিনি রায়গঞ্জ থানার দ্বারস্থ হন। তিনি রায়গঞ্জ থানায় নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন। তাঁর বক্তব্য, আমাদের কাছ থেকে ৫২ হাজার টাকা নেওয়ার পরেও, আরও ৪০ হাজার টাকা চাওয়া হয়। সেই টাকা আমাদের পক্ষে দেওয়া সম্ভব নয় বলে জানালে, আমাকে এবং আমার পরিবারকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করা হয়েছে।

তাঁর আরও অভিযোগ, বকেয়া টাকা না দিলে, রোগীর কিছু হয়ে গেলে নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ দায়ি থাকবে না বলে হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। ওই রোগীর মেয়ে বলেন, আমার বাবার কিছু হলে, নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে। থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি। সোমবার জেলাশাসক, জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক, রাজ্য আদিবাসী সংগঠন ও মুখ্যমন্ত্রীকে ফ্যাক্স মারফত লিখিত অভিযোগ জানাবো।