বেআইনিভাবে রুট পারমিট দেওয়ার অভিযোগ রায়গঞ্জে

207

রায়গঞ্জ: হাজার হাজার টাকার বিনিময়ে বেআইনিভাবে রুট পারমিট দেওয়ার অভিযোগে সড়ব হল শতাধিক অটোচালক। বুধবার উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জ থানার কর্ণজোড়া মোড় এলাকায় রাজ্য সড়ক অবরোধ করার পর আরটিও অফিস ঘেরাও করে বেআইনি রুটের অনুমোদন বাতিলের দাবিতে তীব্র বিক্ষোভে সরব হয়। দীর্ঘক্ষণ বিক্ষোভের পর কর্ণজোড়ায় আঞ্চলিক পরিবহন আধিকারিককে ঘেরাও করে তাদের দাবি পত্র জমা দেয়। মালিক পক্ষের বক্তব্য, অবিলম্বে অবৈধ রোড পারমিট বন্ধ করতে হবে। বাতিল না করা পর্যন্ত আন্দোলনে চলতে থাকবে। শুধু তাই নয় আমাদের দাবি না মানা হলে জেলা জুড়ে বৃহত্তর আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মালিক কর্তৃপক্ষ।

আন্দোলনকারীদের বক্তব্য, ৫ থেকে ১০ কিলোমিটারের অটো পারমিট দেওয়া হয়েছে। এই ব্যাপারে রায়গঞ্জ আঞ্চলিক পরিবহন অধিকর্তা সুরজ দাস বলেন, ‘পারমিটের জন্য টাকা আমি নেইনি। যে সংস্থার সঙ্গে গাড়ির চুক্তি হয়েছে সেই সংস্থা হয়ত টাকা নিয়েছে। এখানে নির্দিষ্ট নিয়ম অনুযায়ী ফিস দিতে হয়। তিনি আরও বলেন, ‘লকডাউন পরিস্থিতিতে পড়ে সমস্ত পরিবহন ব্যবসা মন্দা চলছে। এই অবস্থায় স্বাভাবিকভাবে তাদের রোজগার কমে গিয়েছে। তাঁরা যদি না চালাতে পারে তার অন্য ব্যবস্থা রাখতে হবে। যে ২৫০টি অটো আত্মসমর্পণ করতে এসেছে সেটা সঠিক পদ্ধতি নয়।

- Advertisement -

আরটিওর কাছে গাড়ি আত্মসমর্পণ করতে গেলে গাড়ির কাগজপত্র জমা করলেই হবে। গতিধারা প্রকল্প ছাড়া অন্য কোনও প্রকল্পে প্যাসেঞ্জার গাড়ি দেওয়া হয় না। এখানকার বেকার যুবক-যুবতী যারা আছেন তাদের কাজের সংস্থান করে দেওয়ার জন্যই এই প্রকল্প। আমরা নিয়ম মেনেই ২০০টি অফার লেটার দিয়েছি। টাকা নেওয়ার পরিবর্তে অফার লেটার দেওয়া হচ্ছে। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘ডিলার তাঁর গাড়ির দাম কত নেবে সেটা তাঁর ব্যাপার। ফলে ডিলার কত টাকা নিচ্ছেন তা আমাদের এক্তিয়ারের বাইরে।‘ অটোচালক এবং মালিকপক্ষের আন্দোলনের জেরে এদিন সকাল ৯টা থেকে বেলা ২টো পর্যন্ত অটো চলাচল বন্ধ হয়ে যায় ফলে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হয় রায়গঞ্জ হেমতাবাদ রুটের নিত্যযাত্রীদের পাশাপাশি অফিস যাত্রীদের।