পঞ্চায়েত সদস্যের ছেলেকে অপহরণ করে মুক্তিপণ না পেয়ে হত্যার অভিযোগ

278

বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমানের গলসিতে পঞ্চায়েত সদস্যের ছেলেকে অপহরণ করে মুক্তিপণ না পেয়ে হত্যার অভিযোগে চাঞ্চল্য ছড়াল এলাকায়। শুত্রুবার ডিভিসির সেচ খালের জল থেকে হাত পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার হয় সন্দীপ দলুইয়ের নিথর দেহ।

অপহরণ ও খুনে জড়িত থাকার অভিযোগে ইতিমধ্যে গলসি থানার পুলিশ স্থানীয় সাঁকো মেটেপাড়া এলাকার ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। ধৃতদের নাম সুব্রত মাঝি ওরফে বাদশা, বাড়ি সাঁকো ডোমপাড়ায়। বাকিরা হল জয়ন্ত বাগ ওরফে নিরঞ্জন, বাড়ি মেটেপাড়ায় এবং মঙ্গলদীপ দলুই ওরফে বাবু, বাড়ি সাঁকোর মেটেপাড়া। এদিন মৃতদেহ উদ্ধারের পর ক্ষিপ্ত বাসিন্দারা অভিযুক্তদের বাড়িতে হামলা চালান। ভাঙচুর করা হয় বাড়ি। এলাকায় পুলিশ টহল চলছে।

- Advertisement -

প্রসঙ্গত, বুধবার সাঁকো গ্রামে মনসা পুজো ছিল। সেদিন বিকেলে পঞ্চায়েত সদস্য বুদ্ধদেব দলুইয়ের ৯ বছর বয়সী ছেলে সন্দীপ পাড়ার মনসা মন্দিরে যায়। মা সান্ত্বনা দলুই বলেন, ‘তাঁর ছেলে সন্দীপ স্থানীয় বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণীতে পড়ে। বুধবার ছেলে মনসা মন্দিরে যাওয়ার পর থেকেই ছেলের আর কোনও খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। সন্ধ্যার পর পাড়ার সবাই মিলে সন্দীপের খোঁজ চালায়। কিন্তু সন্দীপের খোঁজ পাওয়া যায়নি।’ পাশাপাশি সান্ত্বনাদেবী জানান, বুধবার রাতে তাঁর স্বামী বুদ্ধদেববাবুর মোবাইলে ফোন করে অরণকারীরা মুক্তিপণ দাবি করে। এই প্রসঙ্গে বুদ্ধদেববাবু জানান, তাঁকে ফোন করে প্রথমে ৭ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ চাওয়া হয়। পরে দ্বিতীয়বার ফোন করে তাঁর কাছে ৩ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। একই সঙ্গে ফোনে হুমকি দিয়ে জানানো হয়, মুক্তিপণের বিষয়ে পুলিশ ও প্রতিবেশীদের কাউকে কিছু জানালে তাঁর ছেলেকে প্রাণে মেরে দেবে তারা। গতকাল বুদ্ধদেববাবু ঘটনাটি গলসি থানায় জানান। অভিযোগ পাওয়ার পরই তদন্ত শুরু করে পুলিশ। এরপরই এদিন সন্দীপের মৃতদেহ উদ্ধার হয়।