গর্ভস্থ শিশুর মৃত্যু ঘিরে হাসপাতালে উত্তেজনা

365

বর্ধমান: চিকিৎসায় গাফিলতির জেরে মাতৃগর্ভে থাকা শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ উঠল পূর্ব বর্ধমানের কালনা মহকুমা হাসপাতালে। অন্যদিকে, চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্য কর্মীদের নিগ্রহের অভিযোগ উঠেছে প্রসূতির পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে। ঘটনাকে ঘিরে সোমবার হাসপাতালে উত্তেজনা ছড়ায়। ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে কালনা থানার পুলিশ চারজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে। রোগীর পরিজনদের এমন আচরণ বরদাস্ত যোগ্য নয় বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, বিউটি বিবি নামে কালনা থানার নান্দাই গ্রামের এক মহিলা প্রসব যন্ত্রণা নিয়ে রবিবার বিকেলে কালনা মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি হন। সোমবার দুপুর ১টা নাগাদ তাঁর পরিবারের লোকজন হঠাৎই জানতে পারেন, বিউটি বিবির গর্ভের সন্তান মারা গিয়েছে। এরপরেই প্রসূতির পরিবারের সদস্যরা উত্তেজিত হয়ে কালনা মহকুমা হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্য কর্মীদের উপর চড়াও হন। তাঁদের নিগ্রহ করেন বলে অভিযোগ। ঘটনার পরই কাজ বন্ধ করে নার্সরা নিরাপত্তার দাবিতে হাসপাতাল সুপারের ঘরের সামনে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। খবর পেয়ে কালনা থানার পুলিশ হাসপাতালে যায়। প্রসূতির পরিবারের সদস্যরা পুলিশের সামনেই চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগে সরব হন।

- Advertisement -

প্রসূতির আত্মীয় খাদিম সেখ জানান, হাসপাতালে ভর্তি করার পরও স্যালাইন বা ওষুধ কিছুই প্রসূতিকে দেওয়া হয়নি। কোনও চিকিৎসাই হয়নি। তাঁরা প্রসূতিকে নার্সিংহোমে নিয়ে যেতে চাইলেও যেতে দেওয়া হয়নি। উলটে নার্সরা খারাপ ব্যবহার করেন। এদিন তাঁদের জানানো হয়, প্রসূতির গর্ভের সন্তান মারা গিয়েছে।

হাসপাতালের সুপার কৃষ্ণচন্দ্র বড়াই জানান, রোগীর আত্মীয় পরিজনরা চিকিৎসক, নার্স ও হাসপাতালের কর্মীদের মারধর করেছেন। হাসপাতালে ভাঙচুর করা হয়েছে। এই ঘটনায় আহত হন ১৫ জন। ঘটনার পরই নিরাপত্তার দাবিতে কাজ বন্ধ করে দেন নার্সরা। হাসপাতাল ও পুলিশের তরফে আশ্বাস দেওয়া হলে পরে তাঁরা ফের কাজ শুরু করেন। ওই প্রসূতির গর্ভে থাকা সন্তানের অবস্থা ভালো ছিল না।

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ধ্রুব দাস জানিয়েছেন, হাসপাতালে অশান্তি সৃষ্টির অভিযোগে এখনও পর্যন্ত চারজনকে আটক করা হয়েছে।