প্রকাশ্যে বালি চুরি, প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন

132

রাজগঞ্জ: রাজগঞ্জের বলরাম এলাকায় সাহু নদীতে সেতুর তলা থেকে অবাধে চুরি হচ্ছে বালি। এতে শুধু সরকারি নির্দেশিকাকে বুড়ো আঙুল দেখানো বা রাজস্ব ফাঁকি নয়, সেতুর ভবিষ্যৎ প্রশ্নের মুখে এসে দাঁড়িয়েছে। অনেকদিন থেকে প্রকাশ্যে বালি চুরি হওয়ায় প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বিভিন্ন মহলে। যদিও রাজগঞ্জের ভূমি ও ভূমি সংস্কার আধিকারিক (বিএলএলআরও) রূপকচন্দ্র ভাওয়াল জানান, সেতুর নিচ থেকে বালি চুরির বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

রাজগঞ্জের বলরাম ও পুটিমারির মাঝে সাহু নদীতে প্রায় দু’বছর আগে বড় পাকা সেতু তৈরি করে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তর। সেই সেতুর নিচ থেকে অবৈধভাবে দিনের পর দিন বালি চুরি হওয়ায় সেতুর টেকসই নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা জানান, ওই জায়গা থেকে বালি চুরি নতুন ঘটনা নয়, বছরের প্রায়ই সময় বালি পাচার হচ্ছে। কিন্তু বালি মাফিয়াদের ভয়ে প্রতিবাদ করতে সাহস পান না কেউই। পুলিশ বা সংশ্লিষ্ট দপ্তরেরও বালি পাচারের বিরুদ্ধে তেমন অভিযান চোখে পড়ে না। কখনও বা অভিযান করতে দেখা গেলেও মাফিয়াদের কাছে আগেই খবর পৌঁছে যাওয়ায় নদী থেকে গাড়ি নিয়ে সরে পড়ে তারা। পুলিশের সঙ্গে ওই মাফিয়াদের যোগসাজশ থাকায় অবাধে বালি চুরি হচ্ছে বলে অভিযোগ। শুধু বলরাম এলাকা নয়, রাধারবাড়ি, পুটিমারি সহ বিভিন্ন এলাকায় সাহু নদী থেকে বালি ও মাটি পাচার হচ্ছে। প্রশাসনের তরফে কড়া পদক্ষেপ না নেওয়া হলে শুধু রাজস্য ফাঁকি নয়, ক্ষতি হবে সেতুরও।

- Advertisement -