বিজেপি কর্মীর বাড়িতে আগুন লাগানোর অভিযোগ, বিদ্ধ তৃণমূল  

68

আসানসোল: ভোট পরবর্তী অশান্তি অব্যাহত আসানসোল শিল্পাঞ্চলে। এবার বিজেপি কর্মীর বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠল তৃণমূল কংগ্রেস আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার রাতে আসানসোল দক্ষিণ বিধানসভার রানিগঞ্জের বল্লভপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ভট্টাচার্য্য পাড়ায়। স্থানীয় বিজেপি কর্মী দেবাশীষ চট্টোপাধ্যায়ের অভিযোগ,  সোমবার রাতে তাদের অনুপস্থিতির সুযোগ নিয়ে বাড়ির চারপাশে ব্যাপকভাবে ভাঙচুর চালানো হয়। পরে বাড়ির মধ্যে মশাল জ্বালিয়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। বাড়ির সদস্যদের দাবি,  বিজেপি সমর্থক বলে তাদের উপর হামলা চালানো হয়েছে। এমনকি তাদের প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়েছে।  বাড়ির মহিলা সদস্যদের নির্যাতন চালানো হবে বলেও হুমকি দেওয়া হয় বলে তাদের অভিযোগ।

যদিও তৃণমূল কংগ্রেসের নেতৃত্ব এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তাদের দাবি এর পেছনে রয়েছে বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্ধ। দলের জয়ের পরে তৃতীয় বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হওয়ায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে তার দলের কর্মীদের সংযত রাখার আবেদন জানালেন আসানসোল দক্ষিণের বিজেপি বিধায়ক অগ্নিমিত্রা পাল। রানিগঞ্জর বল্লভপুর এলাকায় আক্রান্ত দলীয় কর্মীদের বাড়িতে এসে দলীয় কর্মীদের সংযত থাকার পরামর্শ দেন।

- Advertisement -

অগ্নিমিত্রা পাল বলেন, ‘আমরা হার স্বীকার করে নিয়েছি। তবুও আমাদের দলের কর্মী ও সমর্থকদের মারধর করা হচ্ছে। দলের অফিস ও বাড়িতে হামলা চালিয়ে আগুন লাগিয়ে সম্পত্তি লুটপাঠ চালাচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেসের আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। মুখ্যমন্ত্রীকে তিনি তার দলের কর্মী ও সমর্থকদের সন্ত্রাস বন্ধ করার জন্য বলুন। অগ্নিমিত্রা পাল আরও বলেন, মুখ্যমন্ত্রী কি বিরোধী শুন্য করার কথা ভাবছেন। গতকাল পর্যন্ত পুলিশ ঠিক কাজ করছিল। আজ থেকে আর করছে না। আমার আবেদন, পুলিশ আইন মেনে কাজ করুন।

তৃণমূল কংগ্রেসের জেলার নেতারা জানান, এটি বিজেপির অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের কারণে হয়েছে। এর সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের কোনও যোগ নেই। তাদের আরও দাবি, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাংবাদিক সম্মেলন করে সমস্ত দলের নেতা কর্মীদের সংযত থাকার নির্দেশ দেওয়ার পর কোনও কর্মী এধরণের কাজে যুক্ত থাকতে পারে না।