কন্যাশ্রীর টাকা পাইয়ে দেওয়ার নাম করে ছাত্রীদের থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগ

1524

মুরতুজ আলম, সামসী: কন্যাশ্রী প্রকল্পের টাকা পাইয়ে দেওয়ার নাম করে ছাত্রীদের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা নেওয়ার অভিযোগে চাঞ্চল্য ছড়াল এলাকায়। চাঁচল-২ ব্লকের জালালপুর হাই মাদ্রাসার টিআইসি ও এক গ্রুপ-ডি কর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে। এই নিয়ে গোটা চাঁচল মহকুমা জুড়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

জানা গিয়েছে, জালালপুর এলাকার কতিপয় ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবক তাঁদের অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেছেন, জালালপুর হাই মাদ্রাসার ১৯৮ জন ছাত্রীর কন্যাশ্রী প্রকল্পের(কে-২)পঁচিশ হাজার টাকা পাইয়ে দেওয়ার নাম করে কারও কাছে পাঁচ হাজার আবার কারও কাছে দশ হাজার টাকা নেওয়া হয়েছে। অভিযোগ, ওই মাদ্রাসার টিআইসি তোফাজ্জল হোসেনের নির্দেশে ছাত্রীদের কাছ থেকে ওই টাকা নেন মাদ্রাসার এক গ্রুপ-ডি কর্মী হারুন রশিদ। অভিভাবকদের সাফ অভিযোগ, কন্যাশ্রী প্রকল্পের নামে ছাত্রীদের কাছ থেকে কেন টাকা নেওয়া হচ্ছে? কন্যাশ্রী সরকারি একটি প্রকল্প। তা পাইয়ে দেওয়ার নামে টাকা নেওয়া নোংরামি ছাড়া কিছুই নয়। কতিপয় ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবক ছাত্রীদের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার ভিডিও ক্লিপসহ লিখিতভাবে মাদ্রাসার টিআইসি ও এক গ্রুপ-ডি কর্মীর বিরুদ্ধে লিখিতভাবে জানিয়েছেন, যাতে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে।

- Advertisement -

যদিও এই বিষয়ে জালালপুর হাই মাদ্রাসার টিআইসি তোফাজ্জল হোসেন তার বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘পরিকল্পনা মাফিক আমাকে ফাঁসানোর চক্রান্ত চলছে। সমস্ত অভিযোগ মিথ্যে ও ভিত্তিহীন। এই অন্যায়ের সঙ্গে তিনি এবং তাঁর মাদ্রাসার কোনও কর্মী জড়িত নন।’ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন গ্রুপ-ডি কর্মী হারুন রশিদও। ওই মাদ্রাসার পরিচালন সমিতির সম্পাদক (তৃণমূলের চাঁচল-২ ব্লক সভাপতি)হবিবুর রহমান মুখিয়া বলেন, ‘বিষয়টি তিনি শুনেছেন। খতিয়ে দেখা হবে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

এই ঘটনায় ওই মাদ্রাসার টিআইসি ও গ্রুপ-ডি কর্মীর বিরুদ্ধে চাঁচল-২ বিডিও ও চাঁচল এসডিও-র নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন এলাকার কতিপয় অভিভাবক ও ছাত্রছাত্রী। এই প্রসঙ্গে চাঁচল-২ বিডিও অমিতকুমার সাউ বলেন, ‘অভিযোগ পেয়ে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তদন্তে যদি অভিযোগ প্রমাণিত হয় তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ পদক্ষেপ করা হবে।’