বিজেপির পতাকা-ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলার অভিযোগ

483

তুফানগঞ্জ: বিজেপি কার্যালয়ে থাকা পতাকা-ফেস্টুন ছিড়ে ফেলার ঘটনায় অভিযোগ উঠল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। কোচবিহার জেলার নাককাটি গাছ গ্রাম পঞ্চায়েতের চামটা গ্রামের বলরামপুর চৌপথি এলাকার ঘটনা। এর প্রতিবাদে বিজেপি কর্মীরা মঙ্গলবার সকালে প্রায় আধঘণ্টা ধরে বলরামপুর- দেওচড়াই রাজ্য সড়ক অবরোধ করেন। তুফানগঞ্জ থানার পুলিশের আশ্বাসে অবরোধ তুলে নেওয়া হয়। তবে তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে অভিযোগ অস্বীকার করা হয়।

এদিন সকালে প্রাতর্ভ্রমণকারীরা বিজেপি কার্যালয়ের থাকা পতাকা-ফেস্টুন ছেড়া অবস্থায় দেখতে পায়। খবর পৌঁছায় বিজেপির যুবনেতা সৌরভ দাসের কাছে। তাঁর নেতৃত্বে বিজেপি কর্মীরা রাজ্য সড়ক অবরোধ করেন। বেশ কিছুক্ষণ অবরোধ চলার পর এলাকায় পৌঁছায় তুফানগঞ্জ থানার পুলিশ। পুলিশ পৌঁছে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে কথা বলে অবরোধ তুলে দেয়।

- Advertisement -

বিজেপিকর্মীরা তৃণমূলের দিকে আঙুল তুললেও অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূলের দাবি, এলাকায় রাস পূর্ণিমার কীর্তন হচ্ছে। রাতভর এই অনুষ্ঠান চলে। এলাকা অশান্ত করতেই বিজেপি পরিকল্পনামাফিক এই কাণ্ড ঘটিয়েছে। এই ঘটনার সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের কোনও যোগ নেই।

বিজেপির নেতা উজ্জ্বলকান্তি বসাক বলেন, আমাদের কার্যালয়ে তৃণমূল বারবার আক্রমণ চালাচ্ছে। এর আগেও তৃণমূল সুপ্রিমোর ব্যানার লাগানোকে কেন্দ্র করে নোংরা রাজনীতি করা হয়। এবারও আমাদের পতাকা-ফেস্টুন ছিঁড়ে শান্ত বলরামপুর চৌপথিকে অশান্ত করার চেষ্টা চালাচ্ছে তৃণমূল। এই চক্রান্তকে তীব্র ধিক্কার জানাই।

তুফানগঞ্জ-১ ব্লক (বি)-এর সভাপতি প্রদীপ বসাক বলেন, এই ঘটনায় বিজেপি যে অভিযোগ তুলেছে তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। এর আগেও তুফানগঞ্জবাসী দেখেছে দুর্গাপুজোয় লাগানো মুখ্যমন্ত্রীর শুভেচ্ছাবার্তা ছিঁড়ে ফেলা হয়। এই রকম নোংরা রাজনীতিতে আমরা বিশ্বাসী নই। বিজেপিই এমন ষড়যন্ত্রের রাজনীতি করে।